kalerkantho

বুধবার । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৮ ডিসেম্বর ২০২১। ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

ধর্ষণের পর পাঁচ বছরের শিশুকে হত্যা

তিনজনকে পুলিশে সোপর্দ

আড়াইহাজার (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে পাঁচ বছরের এক কন্যাশিশুর হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। স্থানীয় ব্যক্তিদের ধারণা, শিশুটিকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার সাতগ্রাম ইউনিয়নের পুরিন্দা বড়বাড়ীর একটি তালাবদ্ধ ঘর থেকে শিশুটির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত শিশুর নাম লিজা আক্তার। সে পুরিন্দা গ্রামের রমজান আলীর মেয়ে।

এ ঘটনায় তিন সন্দেহভাজনকে আটক করে থানায় দিয়েছে স্থানীয় লোকজন। তাঁরা হলেন উপজেলার আশুয়াট গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে সোহেল (৩০), কচুয়া থানার রঘুনাথপুর গ্রামের আলী আশরাফের ছেলে সামাদ (৩৫) ও পলাশ থানার কবিরাজপুর গ্রামের নাসির উদ্দিনের ছেলে শিমুল (৩২)।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, সকাল ১০টা থেকে শিশুটিকে পাওয়া যাচ্ছিল না। অনেক স্থানে খোঁজ করার পর পুরিন্দা এলাকার নান্নু মিয়ার বাড়ির একটি ঘর তালাবদ্ধ দেখতে পাওয়া যায়। এতে লোকজনের সন্দেহ হয়। তালা ভেঙে শিশুটির লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়। ওই ঘরে সামাদ ভাড়া থাকেন। স্থানীয় লোকজন জানায়, ভাড়াটিয়া সামাদের কাছে তিন-চারজন লোক সব সময় আসা-যাওয়া করেন। তাঁরা বিভিন্ন ফ্যাক্টরিতে কাজ করেন। আড়াইহাজার থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সালেহ আহমেদ  জানান, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ সদর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। জনতা তিনজনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

আড়াইহাজার থানার ওসি (তদন্ত) জোবায়ের হোসেন জানান, এ ব্যাপারে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। ধর্ষণের কোনো আলামত আছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ময়নাতদন্তের পর বিস্তারিত বলা যাবে।



সাতদিনের সেরা