kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৯ ডিসেম্বর ২০২১। ৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

মায়ের পরকীয়ার বলি মেয়ে

হত্যার পর মামলাও করে পরিকল্পনাকারী

চাঁদপুর প্রতিনিধি   

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রবাসী বাবার অনুপস্থিতিতে মায়ের পরকীয়া প্রেমে বাধা হয়ে দাঁড়ান মেয়ে। আর তাতেই মেয়েকে হত্যার পরিকল্পনা আঁটেন মা তাহমিনা সুলতানা রুমি। সেই মোতাবেক প্রেমিককে দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয় মেয়ে নওরোজ আফরিন প্রিয়াকে। ঘটনা এখানেই থেমে থাকেনি; মেয়ে হত্যার অভিযোগ এনে অচেনা ব্যক্তিদের আসামি করে থানায় মামলা করেন মা। তবে পুলিশের তদন্তে বেরিয়ে আসে মায়ের নৃশংসতার গল্প। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চাঁদপুরের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম কার্তিক চন্দ্র ঘোষের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন মা রুমি।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ১৬ সেপ্টেম্বর রাতে চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার আহমেদনগর গ্রামে খুন হন গৃহবধূ নওরোজ আফরিন প্রিয়া (২১)। পরে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরদিন তাঁর মা তাহমিনা সুলতানা রুমি শাহরাস্তি থানায় অচেনা ব্যক্তিদের আসামি করে হত্যা মামলা করেন। মামলার তদন্তে পুলিশের উপপরিদর্শক আসাদুল ইসলাম জানতে পারেন, নিহতের মায়ের সঙ্গে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক আছে প্রতিবেশী আব্দুল হান্নানের। তিনি প্রেমিকার পরামর্শ অনুযায়ী প্রিয়াকে হত্যা করেন। ঘটনার আগে একমাত্র ছেলেকে বাজারে পাঠান মা রুমি। প্রাথমিক তদন্ত শেষে গত বুধবার রাতে আটক করা হয়  রুমির প্রেমিক আব্দুল হান্নানকে। তাঁর স্বীকারোক্তি অনুযায়ী গতকাল বিকেলে নিহত প্রিয়ার মা রুমিকে আটক করা হয়। 

চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ জানান, নিহত প্রিয়ার বাবা ইসমাইল হোসেন দীর্ঘদিন ধরে বিদেশে থাকেন। এ অবস্থায় প্রতিবেশী আব্দুল হান্নানের সঙ্গে পরকীয়া প্রেমে জড়ান প্রিয়ার মা রুমি। কয়েক বছর আগে মা ও তাঁর প্রেমিককে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলেন প্রিয়া। বিষয়টি বিদেশে অবস্থানরত বাবাকে জানান। এ নিয়ে গ্রামে সালিস বৈঠক হয়। এক পর্যায়ে আব্দুল হান্নান নিজেই বিদেশ চলে যান। মাসখানেক আগে তিনি দেশে ফিরে আবারও পরকীয়া প্রেমে জড়ান। এতে প্রিয়া বাধা হয়ে দাঁড়ালে তাঁকে হত্যার পরিকল্পনা করেন মা ও তাঁর প্রেমিক।



সাতদিনের সেরা