kalerkantho

সোমবার । ৯ কার্তিক ১৪২৮। ২৫ অক্টোবর ২০২১। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

হেফাজতে তিনজনকে নির্যাতনের অভিযোগ ওসির বিরুদ্ধে

বরগুনা প্রতিনিধি   

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বরগুনা সদর থানার ওসি কে এম তারিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে পুলিশ হেফাজতে নির্যাতনের একাধিক অভিযোগ উঠেছে। এর মধ্যে দুই যুবককে নির্যাতনের অভিযোগ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন বরগুনার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. মাহবুব আলম। গতকাল বৃহস্পতিবার আদালত এই আদেশ দেন। এ ছাড়া গত বুধবার সংবাদ সম্মেলন করে থানায় নিয়ে নির্যাতনের অভিযোগ করেন আরেক ব্যক্তি। পুলিশ ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, পৌর শহরের কেজি স্কুল সড়ক থেকে গত সোমবার রাতে শিশিরকে (২৭) পাঁচ পিস ইয়াবাসহ আটক করে সদর থানার পুলিশ। ওই রাতে ক্রোক এলাকা থেকে মো. মামুন হাওলাদার (৩৫) নামের আরেক ব্যক্তিকে ৫১ পিস ইয়াবাসহ আটক করা হয়। তাঁদের গত মঙ্গলবার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে হাজির করা হয়। শিশিরকে আদালতে হাজির করার আগে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায় পুলিশ। এ সময় শিশিরের শরীরে নির্যাতনের চিহ্ন দেখতে পায় তাঁর স্বজনরা। তারা অভিযোগ করে, নির্যাতনে শিশিরের ডান হাত ভেঙে গেছে এবং তাঁকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। আইনজীবী ও আদালত সূত্রে জানা গেছে, বরগুনার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ওই দুই আসামির পক্ষে জামিন আবেদন করা হয়। এ সময় পুলিশ হেফাজতে নির্যাতনের বিষয়টি বিচারকের দৃষ্টিগোচর করা হয়। আদালতের বিচারক শিশির সরকারের জামিন মঞ্জুর করেন এবং পুলিশি নির্যাতনের ঘটনায় জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রাসেল মজুমদারকে বরগুনা সদর হাসপাতালের মেডিক্যাল রিপোর্ট প্রাপ্তি সাপেক্ষে তদন্তের নির্দেশ দেন। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ওসি তারিকুল ইসলাম বলেন, গ্রেপ্তারের সময় শিশির দৌড়ে পালাতে গিয়ে পড়ে গিয়ে আহত হন।



সাতদিনের সেরা