kalerkantho

শনিবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৭ নভেম্বর ২০২১। ২১ রবিউস সানি ১৪৪৩

করোনায় মানুষের পাশে ব্র্যাক

ঢাকার ৬৮ ওয়ার্ডে কার্যক্রম

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজধানীর মোহাম্মদপুর বেড়িবাঁধসংলগ্ন রায়েরবাজার এলাকার সাদেক খান কৃষি মার্কেটে বাজার করতে এসে নিজের মাস্কটি হারিয়ে ফেলেন ৮০ বছরের কবির মাতবর। তিনি মনে করতে পারছিলেন না, কখন কিভাবে সেটি হারাল। সে সময় ব্র্যাকের একজন স্বেচ্ছাসেবক তাঁকে নতুন একটি মাস্ক পরিয়ে দেন। এতে হাসি ফোটে এই অশীতিপরের মুখে। ঘটনাটি গত রবিবারের।

এভাবেই প্রতিদিন রাজধানীর নানা জায়গায়, বিশেষ করে অল্প আয়ের মানুষদের মধ্যে ৫০০টি করে মাস্ক বিতরণ করছে বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাকের কমিউনিটি সাপোর্ট টিম (সিএসটি)।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, রাজধানীর মোট ৬৮টি ওয়ার্ডে গত জুন থেকে চলছে এই মাস্ক বিতরণ, যা চলবে চলতি মাসের শেষ দিন পর্যন্ত। যুক্তরাজ্যের ফরেইন কমনওয়েলথ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অফিসের (এফসিডিও) অর্থায়নে এই কর্মসূচিতে ব্র্যাকের সঙ্গে কাজ করছে জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল (ইউএনএফপিএ) এবং জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও)।

সিএসটি কর্মসূচির আওতায় রাজধানীর ৬৮টি ওয়ার্ডের প্রতিটিতে ছয়টি করে হ্যান্ডওয়াশ বুথও স্থাপন করেছে ব্র্যাক। এসব বুথে তারা সাবান ও হ্যান্ডওয়াশ সরবরাহ করছে। প্রতি ওয়ার্ডে সিএসটি কর্মসূচির জন্য ব্র্যাকের দুজন করে স্বেচ্ছাসেবক রয়েছেন। এই কার্যক্রমে ব্র্যাকের মোট ১৩৬ জন স্বেচ্ছাসেবক এবং ১৭০ জন স্বাস্থ্যকর্মী যুক্ত আছেন।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, এই কার্যক্রমের আওতায় ব্র্যাক ৬৮টি ওয়ার্ডে মোট এক হাজার ৩৬০টি কভিডের ‘হটস্পট’ চিহ্নিত করেছে। এর মধ্যে রয়েছে সেলুন, বাজার, মসজিদ, বাসস্ট্যান্ড, স্কুল, বস্তিসহ কিছু জনসমাগমপূর্ণ জায়গা। এসব ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার মানুষদের মাস্ক পরা, সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, টিকা নেওয়াসহ নানা বিষয়ে সচেতন করছে ব্র্যাক।

সিএসটি কর্মসূচির বিষয়ে ব্র্যাকের স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও জনসংখ্যা কর্মসূচির পরিচালক মোর্শেদা চৌধুরী বলেন, ‘সবাই ভ্যাকসিন পাইনি। ফলে মাস্ক পরাটা সবার জন্য জরুরি। আমরা এ ব্যাপারে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করছি। পাশাপাশি মানুষের মধ্যে ভ্যাকসিন নিয়ে যে ভীতি আছে সেটা দূর করার চেষ্টা করছি।’



সাতদিনের সেরা