kalerkantho

বুধবার । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৮ ডিসেম্বর ২০২১। ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে প্রকৃতির ওপর ‘ভরসা’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দেশে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডেঙ্গুবিষয়ক তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, গত মাসের প্রথম ১৫ দিনের তুলনায় চলতি মাসের ১৫ দিনে দেশে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে হাজারেরও বেশি।

ঢাকার দুই সিটি বলছে, ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে তাদের সদিচ্ছা বা চেষ্টার কোনো ত্রুটি নেই। তবে ডেঙ্গু রোগের জীবাণুবাহী এডিস মশার প্রজননের জন্য দায়ী ঘন ঘন বৃষ্টিপাত এবং তাপমাত্রার তারতম্য যত দিন না কমবে, তত দিন এডিস পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়।

গতকাল বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেওয়া ডেঙ্গুবিষয়ক তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ১ থেকে ১৫ আগস্ট পর্যন্ত দেশে মোট ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ছিল তিন হাজার ৪৪২। অন্যদিকে ১ সেপ্টেম্বর থেকে গতকাল (১৫ সেপ্টেম্বর) পর্যন্ত দেশে ডেঙ্গু রোগী চার হাজার ৪৭৫ জন। গত মাসের প্রথমার্ধের তুলনায় চলতি মাসের এ সময়ে রোগী বেড়েছে এক হাজার ৩৩ জন।

এ ছাড়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে পাঠানো ডেঙ্গুবিষয়ক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে যে গতকাল বিকেল পর্যন্ত আগের ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৩০৭ জন, যার মধ্যে ঢাকার ২৪৪ জন এবং ঢাকার বাইরের ৬৩ জন।

গতকাল পাঠানো এই বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে মোট ডেঙ্গু রোগী ভর্তি আছে এক হাজার ২৯১ জন। এর মধ্যে ঢাকার ৪১টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি এক হাজার ৯২ জন এবং অন্যান্য বিভাগে ১৯৯ জন রোগী ভর্তি রয়েছে। ১ জানুয়ারি থেকে গতকাল পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ১৪ হাজার ৮৩১ এবং এই সময়ে হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ১৩ হাজার ৪৮৩ জন। এ পর্যন্ত দেশে ডেঙ্গুতে মোট প্রাণহানি হয়েছে ৫৭ জনের।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিম রেজা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সিটি করপোরেশন কাজ না করলে ডেঙ্গুর অবস্থা আরো খারাপ হতো। তবে এখন কিন্তু দিন দিন ডেঙ্গু কমে আসছে। কারণ আগস্ট-সেপ্টেম্বরে আবহাওয়া ডেঙ্গুর অনুকূলে থাকে। এই সময়টা এডিসের প্রজননের জন্য বেশি উপযোগী।’

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদ আহাম্মদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা প্রকৃতির ওপর নির্ভর করে নেই। আমরা কাজ করছি। ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আমাদের আন্তরিকতা ও চেষ্টার কোনো ত্রুটি নেই। তবে পুরো পৃথিবীতে কেউই এটা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি।’



সাতদিনের সেরা