kalerkantho

বুধবার । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৮ ডিসেম্বর ২০২১। ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

প্রতিবন্ধী পরিবারের ওপর হামলা, মামলা

পটুয়াখালী প্রতিনিধি   

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রতিবন্ধী পরিবারের ওপর হামলা, মামলা

কেউ কানে শোনেন না, কারো বা কথা বলার ক্ষমতা নেই, কেউ বা অন্ধ, আবার মানসিকভাবে সুস্থ নন কেউ, এমন প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের ওপর হামলা চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। একই পরিবারের এই অসহায় ব্যক্তিদের নামে দেওয়া হয়েছে মামলাও। এমনকি এলাকা ছাড়ার হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলেও দাবি করেছে ভুক্তভোগী পরিবারটি।

ঘটনাটি ঘটেছে পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার কনকদিয়া ইউনিয়নের বীরপাশা গ্রামে। গত শনিবার একই এলাকার ইউসুফ খান তাঁর লোকজন নিয়ে প্রতিবন্ধী পরিবারটির ওপর হামলা চালান বলে অভিযোগ।

হামলায় গুরুতর এক নারীকে বরিশাল শের-ই-বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় (শেবাচিম) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত বাকি চারজনকে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, গত শনিবার বিকেলে প্রতিবন্ধী চার ভাই আনোয়ার খান, দেলোয়ার খান, কাশেম খান ও কামাল খান তাঁদের ২০ শতাংশ জমিতে ধান বোনা শুরু করেন। তখন সেখানে উপস্থিত হয়ে ইউসুফ জমিটি তাঁর বলে দাবি করেন। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ইউসুফ, তাঁর ভাই রশিদ, ছেলে বাবু, মনির, ভাতিজা নয়ন, হৃদয়সহ কয়েকজন দেশি অস্ত্র নিয়ে হামলা চালান। তাঁরা পিটিয়ে ও কুপিয়ে দেলোয়ার খান, আনোয়ার খান, তাঁদের মা স্বরভানু, ভাবি তানিয়া বেগমকে আহত করেন। তাঁদের মধ্যে তানিয়ার অবস্থা গুরুতর।

এ ঘটনার পর প্রতিবন্ধী পরিবারটির বিরুদ্ধে উল্টো নির্যাতনের অভিযোগ এনে গত সোমবার পটুয়াখালী জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করেন ইউসুফ খান। পরদিন মঙ্গলবার স্বরভানু বাদী হয়ে পৃথক মামলা করেন। আদালত আজ বৃহস্পতিবার আদেশ দিতে পারেন বলে জানা গেছে।

তানিয়া বেগম গতকাল বলেন, ‘আমার স্বামী বোকাসোকা, মানসিকভাবে অসুস্থ। আমাদের জমি জবরদখল করে নেওয়ার চেষ্টা করছেন ইউসুফ খান এবং তাঁদের লোকজন। তাঁরা এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করেন। আমার পরিবারের লোকদের কুপিয়ে-পিটিয়ে আহত করেছেন। এখন আমাদের এলাকা ছেড়ে চলে যাওয়ার হুমকি দিচ্ছেন। আমরা ভয়ের মধ্যে আছি।’

বাউফল থানার ওসি আল মামুন বলেন, প্রতিবন্ধী পরিবারটির ওপর ইউসুফ খানের নির্যাতনে বিষয়টি শুনেছেন। থানায় না এসে আদালতে মামলা করেছেন, এটা দুঃখজনক। তবে আদালত কোনো নির্দেশনা দিলে সে অনুযায়ী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।



সাতদিনের সেরা