kalerkantho

সোমবার । ৯ কার্তিক ১৪২৮। ২৫ অক্টোবর ২০২১। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সাংবাদিক দিদারের পরিবারের পাশে বসুন্ধরা গ্রুপ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সাংবাদিক দিদারের পরিবারের পাশে বসুন্ধরা গ্রুপ

বাংলাদেশ প্রতিদিনের সাংবাদিক দিদারুল আলমের অকালমৃত্যুতে তাঁর স্ত্রী দিলরুবা বেগম ও মেয়ে সামান্তা দিদার দিঘীর হাতে গতকাল ১০ লাখ টাকার চেক তুলে দেন বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর। ছবি : কালের কণ্ঠ

বাংলাদেশ প্রতিদিনের চট্টগ্রাম ব্যুরোর সিনিয়র আলোকচিত্র সাংবাদিক দিদারুল আলমের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপ। দিদারুলের অকালমৃত্যুতে তাঁর স্ত্রী দিলরুবা বেগম ও মেয়ে সামান্তা দিদার দিঘীর হাতে ১০ লাখ টাকার চেক তুলে দেন বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর।

তিনি বলেন, ‘চট্টগ্রামের সম্পদের সঠিক ব্যবহার ও সম্ভাবনার সবটুকু অর্জনে গণমাধ্যমকর্মীদের বিশেষ ভূমিকা ও সহযোগিতা গুরুত্বপূর্ণ। গণমাধ্যমকর্মীদের ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি জাতীয় অগ্রগতিও ত্বরান্বিত করে।’ এ সময় সাংবাদিক দিদারুল আলমের স্ত্রী-মেয়েকে ভবিষ্যতেও সহায়তার আশ্বাস দেন বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

সহায়তার চেক পাওয়ার পর আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন দিদারুলের স্ত্রী দিলরুবা বেগম। তিনি বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। সম্প্রতি রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বাসভবনে আয়োজিত চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে কালের কণ্ঠ সম্পাদক ও ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপের পরিচালক ইমদাদুল হক মিলন, বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক এবং নিউজ টোয়েন্টিফোর ও রেডিও ক্যাপিটালের সিইও নঈম নিজাম, বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর ডটকমের সম্পাদক জুয়েল মাজহার, বসুন্ধরা গ্রুপের উপদেষ্টা (প্রেস অ্যান্ড মিডিয়া) মো. আবু তৈয়ব, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোহাম্মদ আলী ও সাধারণ সম্পাদক ম. শামশুল ইসলামসহ বসুন্ধরা গ্রুপের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম বলেন, ‘বসুন্ধরা গ্রুপ সব সময় মিডিয়াবান্ধব। শুধু নিজেদের নয়, দেশের অন্যান্য মিডিয়ার সাংবাদিকদেরও সহায়তার নজির রয়েছে বসুন্ধরার। এরই ধারাবাহিকতায় আমাদের সহকর্মী দিদারুল আলমের অকালমৃত্যুতে তাঁর পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপ।’

উল্লেখ্য, গত ১৮ আগস্ট রাতে দিদার জ্ঞান হারান। পরে তাঁকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরের দিন বিকেলে হাসপাতালের আইসিইউতে তিনি শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

এর আগে গেল বছরের জুলাইয়ে করোনায় মারা যাওয়া তিন সাংবাদিকের পরিবারকে পাঁচ লাখ টাকা করে অনুদান দেয় বসুন্ধরা গ্রুপ।



সাতদিনের সেরা