kalerkantho

রবিবার । ৮ কার্তিক ১৪২৮। ২৪ অক্টোবর ২০২১। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বিচার পাওয়ার আগেই মৃত্যু ধর্ষণের শিকার কিশোরীর

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কিশোরগঞ্জের ভৈরবে এক কিশোরীকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ধর্ষণ করেছিলেন ‘প্রেমিক’। এতে সে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। কিন্তু পরে প্রেমিক তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানান। অবশেষে না ফেরার দেশে চলে গেছে মেয়েটি। গত সোমবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় তার। কিশোরীটি (১৫) ভৈরব উপজেলার আমলাপাড়া গ্রামের এক ভ্যানচালকের মেয়ে। ধর্ষণে অভিযুক্ত আশিক মিয়া (২৭) কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার লোহাজুরি গ্রামের আমিন মিয়ার ছেলে। তিনি আমলাপাড়ায় একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। এ ঘটনায় কিশোরীর মামলার পর থেকে আশিক পলাতক। কিশোরীর মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। মৃতের পরিবার ও এলাকাবাসী জানায়, কিশোরীটি ১০ মাস আগে আমলাপাড়া গ্রামেই একটি বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করত। এ সুবাদে পাশের বাড়ির ভাড়াটিয়া আশিক মিয়ার সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক হয়। এক পর্যায়ে আশিক বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। এতে সে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। আশিক তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানান। কিশোরীর পরিবার এলাকায় দ্বারে দ্বারে ঘুরেও এর বিচার পায়নি। পরে কিশোরী বাদী হয়ে প্রধান অভিযুক্ত আশিকসহ তিনজনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করে।



সাতদিনের সেরা