kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২ ডিসেম্বর ২০২১। ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

১৫ সেপ্টেম্বরের পর গতি পাচ্ছে খালেদা মুক্তির আবেদন

সারসংক্ষেপ যাবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



১৫ সেপ্টেম্বরের পর গতি পাচ্ছে খালেদা মুক্তির আবেদন

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির আবেদন ১৫ সেপ্টেম্বরের পর গতি পাবে। আইন মন্ত্রণালয় থেকে দেওয়া মতামতের ভিত্তিতে আবেদনের সারসংক্ষেপ করে পাঠানো হবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে। প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে অনুমোদন সাপেক্ষে পরবর্তী সময়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বর্তমানে জার্মানি সফর করছেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মোকাব্বির হোসেনও রয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রে। মন্ত্রী ও সচিব দুই দেশের বাংলাদেশ দূতাবাসে ই-পাসপোর্টের উদ্বোধন করতে গেছেন। তাঁরা ফিরে এলেই খালেদা জিয়ার মুক্তির আবেদনের সারসংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে পাঠানো হবে বলে জানা গেছে। সারসংক্ষেপের পর প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে অনুমোদন সাপেক্ষে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রজ্ঞাপন জারি করবে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, আগে দেওয়া আদেশ অনুযায়ী ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ রয়েছে। এই সময়ের মধ্যেই নতুন করে মেয়াদ বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দেশে ফিরছেন আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর। মন্ত্রী দেশে ফেরার পরদিনই খালেদা জিয়ার মুক্তির আবেদনের সারসংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যেতে পারে।

অন্যদিকে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, এর আগে দুইবার শর্ত সাপেক্ষে খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছিল। এবারও আইন মন্ত্রণালয় থেকে আরো ছয় মাস বাড়ানোর মতামত দেওয়া হয়েছে।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে কারাবন্দি ছিলেন খালেদা জিয়া। কারাগারে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে পরিবারের সদস্যদের আবেদনে সাজা ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে তাঁকে সাময়িক মুক্তি দেয় সরকার।

ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১(১) ধারার ক্ষমতাবলে সরকার শর্ত সাপেক্ষে খালেদা জিয়াকে মুক্তির আদেশ দেয়। এই আদেশে গত বছরের ২৫ মার্চ বিএসএমএমইউ হাসপাতালের প্রিজন সেল থেকে মুক্তি পান খালেদা জিয়া। এর পর থেকে তিনি রাজধানীর গুলশানে নিজ বাসভবন ফিরোজায় রয়েছেন। এর মধ্যে তাঁর মুক্তির মেয়াদ আরেক দফা বাড়ানো হয়েছে।

দ্বিতীয় দফায় বৃদ্ধি করা মুক্তির মেয়াদ আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর শেষ হচ্ছে। এ অবস্থায় চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেওয়ার জন্য পরিবারের পক্ষ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তথা সরকারের কাছে নতুন করে আবেদন করা হয়।



সাতদিনের সেরা