kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৯ ডিসেম্বর ২০২১। ৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

দ্বিতীয় ডোজের গণটিকা শুরু

কোথাও লম্বা লাইন কোথাও ফাঁকা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কোথাও লম্বা লাইন কোথাও ফাঁকা

সারা দেশে গণটিকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া শুরু হয়েছে গতকাল। রাজধানীর মুগদা আইডিয়াল স্কুল কেন্দ্রে টিকা নিতে আসা মানুষের এই গাদাগাদিতে স্বাস্থ্যবিধি উধাও। ছবি : কালের কণ্ঠ

দেশজুড়ে শুরু হয়েছে করোনাভাইরাসের গণটিকার দ্বিতীয় ডোজ প্রয়োগ। ৭ থেকে ১২ আগস্ট যাঁরা প্রথম ডোজ নিয়েছিলেন গতকাল মঙ্গলবার তাঁদের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া শুরু হয়। নিয়মিত কেন্দ্রের পাশাপাশি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়েও গতকাল এই টিকা দেওয়া হয়। পূর্ব ঘোষণা অনুসারেই সকাল ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত প্রথম দুই ঘণ্টা টিকা দেওয়া হয়েছে বয়স্ক ও নারীদের। এরপর অন্যদের টিকা দেওয়া হয়। যদিও ঢাকাসহ অনেক এলাকায়ই বৃষ্টির কারণে কিছুটা সমস্যা হয়েছে টিকা দিতে আসা মানুষের। ঢাকার বিভিন্ন কেন্দ্রের পাশাপাশি ঢাকার বাইরে বিভিন্ন বিভাগীয় শহর, সিটি করপোরেশন, জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে টিকা দেওয়া হয়েছে।

রংপুরে সিটি করপোরেশন এলাকার আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে টিকা নিতে আসা জুম্মাপাড়া এলাকার নাজিমুদ্দিন (৫৫) জানান, তিনি দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিতে দিনক্ষণ হিসাব করছিলেন। গণটিকার দ্বিতীয় ডোজ শুরু হওয়ার কথা শুনে সকালেই স্ত্রীসহ কেন্দ্রে গিয়ে টিকা নিয়েছেন। তবে প্রচারণা ভালো হয়নি বলে অভিযোগ করেন তিনি।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অফিস সূত্রে জানা যায়, রংপুর বিভাগের আট জেলায় গতকাল পর্যন্ত সিনোফার্মার  প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজের টিকা গ্রহণকারীর সংখ্যা ১৪ লাখ ৯২ হাজার ৮১১ জন। এর মধ্যে প্রথম ডোজ গ্রহণ করেছেন ১২ লাখ ১৪ হাজার ১৯০ জন এবং দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিয়েছেন দুই লাখ ৭৮ হাজার ৬২১ জন। এখনো ৯ লাখ ৩৫ হাজার ৫৬৯ জন দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিতে বাকি রয়েছেন। এদিকে সিটি করপোরেশন এলাকায় মডার্নার টিকা গ্রহণ করেছেন এক লাখ ৬৬ হাজার ৭৯৩ জন। এর মধ্যে প্রথম ডোজের টিকা নিয়েছেন এক লাখ ৩০ হাজার ৯১০ জন এবং দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিয়েছেন ৩৫ হাজার ৮৮০ জন। এখনো ৯৫ হাজার ৩০ জনের দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিতে বাকি রয়েছে।

পঞ্চগড় সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে সকাল থেকেই টিকাপ্রত্যাশীদের ভিড় ছিল লক্ষ করার মতো। পঞ্চগড় পৌরসভার নারীদের টিকা দেওয়া হচ্ছে এই কেন্দ্রে। তবে সদর উপজেলার অন্যান্য এলাকার মানুষের রেজিস্ট্রেশন অনুযায়ী কেন্দ্রের নাম সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় হওয়ায় তাদেরও এই কেন্দ্রে এসেই টিকা নিতে হচ্ছে। ভোগান্তিতে পড়েছেন বয়স্ক নারীরা। কড়া রোদ মাথায় নিয়ে তিন থেকে চার ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকে মিলেছে টিকা। দুপুর ১টা পর্যন্ত এই কেন্দ্রে ৭০০ মানুষকে টিকা দেওয়া হয়। এ ছাড়া পঞ্চগড় জেলার অন্যান্য কেন্দ্রেও একই রকম ভিড় ছিল। ভিড় বেশি থাকায় শারীরিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে অনেককে ভ্রুক্ষেপ করতে দেখা যায়নি।     

বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার পূর্বনির্ধারিত আটটি কেন্দ্রের ২৪টি বুথে গণটিকা কার্যক্রমের দ্বিতীয় ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। গতকাল উপজেলার আট ইউনিয়নে টিকার কেন্দ্রগুলোতে স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি মেনে মানুষকে টিকা গ্রহণ করতে দেখা গেছে।

ফকিরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, টিকা প্রদানের ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধা, বৃদ্ধ, প্রতিবন্ধী, অসুস্থ ও নারীদের অগ্রাধিকার প্রদান করা হয়েছে। গণটিকার প্রথম ডোজ গ্রহণকারীদের টিকা দেওয়া হবে ঘোষণা করায় বাড়তি ভিড় হয়নি বলে জানা যায়।

ফকিরহাট উপজেলা চেয়ারম্যান স্বপন দাশ বলেন, জীবন বাঁচাতে সরকারের টিকা কার্যক্রম চলমান থাকবে। তবে তিনি মাস্ক পরা, হাত ধোয়া ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার বিষয়ে সচেতনতা বাড়ানোর বিষয়ে জোর দেন।

গতকাল সারা দেশে ৩০ লাখ ডোজ টিকা প্রয়োগ করা হয়।

[এ প্রতিবেদনে তথ্য দিয়েছেন আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিরা।]



সাতদিনের সেরা