kalerkantho

সোমবার ।  ২৩ মে ২০২২ । ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২১ শাওয়াল ১৪৪৩  

দাউদকান্দির খিদমাহ হাসপাতালে প্রাণ গেল নবজাতকের

দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কুমিল্লার দাউদকান্দিতে খিদমাহ ডিজিটাল হাসপাতালের মালিক ও চিকিৎসকের দায়িত্বজ্ঞানহীন ভূমিকায় এক নবজাতকের প্রাণ গেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গতকাল রবিবার বিকেলে উপজেলার গৌরীপুর বাজারে অবস্থিত ওই হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। পরে ক্ষুব্ধ স্বজনরা ভাঙচুরের চেষ্টা করলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। মৃত শিশুটি তিতাস উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামের জামাল ও তাসলিমা আক্তার দম্পতির সন্তান।

বিজ্ঞাপন

ভুক্তভোগী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সাত মাসের গর্ভবতী তাসলিমা আক্তার আলট্রাসনোগ্রাম করার জন্য এক সপ্তাহ আগে ওই হাসপাতালে যান। তখন হাসপাতাল মালিক সাইফুল ইসলাম নিজেই আলট্রাসনোগ্রাম করিয়ে বলেন, ‘তার গর্ভের সন্তানের বয়স ৯ মাস হয়েছে। সেপ্টেম্বরের ২/৩ তারিখের মধ্যে ডেলিভারি করাতে হবে। ’ গত শনিবার সাইফুল নিজেই তাহমিনাকে কয়েকবার টেলিফোন করেন। বলেন, ‘রবিবারের মধ্যে সিজারিয়ান না করলে শিশুর ক্ষতি হবে। ’ পরে গতকাল সাইফুল ও চিকিৎসক সিফাত হোসেন রত্না মিলে সিজারিয়ান করান। এর কিছুক্ষণ পরেই নবজাতকের মৃত্যু হয়। এ পরিস্থিতিতে উন্নত চিকিৎসার কথা বলে মৃত শিশুকে ঢাকায় পাঠানোর পাঁয়তারা করেন সাইফুল। জানতে চাইলে চিকিৎসক সিফাত হোসেন রত্না বলেন, ‘সাত মাসের গর্ভবতী তাসলিমাকে সিজারিয়ান করাতে আমি না করেছিলাম। হাসপাতালের মালিক সাইফুল ইসলাম বলেন, কোনো সমস্যা নেই, আলট্রাসনোগ্রাফি রিপোর্টে শিশুর ৯ মাস হয়েছে। আপনি সিজারিয়ান করান, কোনো সমস্যা নেই। এই কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। ’



সাতদিনের সেরা