kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৯ ডিসেম্বর ২০২১। ৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী জেলে সমিতির বর্ধিত সভা

জলদস্যু আতঙ্কে ১৭ লাখ জেলে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সাগরে মাছ ধরতে গেলে আতঙ্কে থাকেন জেলেরা। সারাক্ষণই তাঁদের জলদস্যুদের অপহরণ আতঙ্ক তাড়া করে বেড়ায়। জলদস্যুদের তাণ্ডব, লুটপাট ও অপহরণের ঘটনায় বর্তমানে চরম আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন ১৭ লাখ জেলে। বাংলাদেশ ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী জেলে সমিতির বর্ধিত সভায় নেতারা এই অভিযোগ করেন।

গতকাল শনিবার রাজধানীর পুরানা পল্টনের কার্যালয়ে সারা দেশের জেলে প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে ওই বর্ধিত সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি ইসরাইল পণ্ডিত। বক্তব্য দেন সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন সিকদার, সিলেট জেলে সমিতির সভাপতি নূরুল ইসলাম, রাজশাহী জেলে সমিতির সভাপতি ডা. আলী আশরাফ, চট্টগ্রাম জেলে সমিতির সভাপতি বিজয় চন্দ্র দাস, বরিশাল জেলে সমিতির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ বাবুল হোসেন, রংপুর জেলে সমিতির সাধারণ সম্পাদক বজলুল হক প্রমুখ।

সরকারের কোনো প্রকল্প জেলেদের উপকারে আসছে না উল্লেখ করে নেতারা বলেন, জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ হয়েছে, সেখানে প্রকৃত জেলেদের নাম নেই। জেলে প্রতিনিধি নিয়ে সভা করার কথা থাকলেও তা করা হয়নি। জেলেদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া মালপত্র পছন্দের লোকদের বরাদ্দ দিচ্ছেন মৎস্য কর্মকর্তাসহ ক্ষমতাশালী রাজনৈতিক দলের নেতারা। প্রকৃত জেলেরা খাদ্যসহায়তা, আর্থিক সহায়তা (১০ হাজার), গরু, ছাগল পালনসহ বিভিন্ন বরাদ্দ পান না। বাস্তবে প্রকৃত জেলেরা বঞ্চিত হচ্ছেন।

নেতারা জলদস্যু দমন, জাল পোড়ানো, মোবাইল কোর্ট, জলোচ্ছ্বাস, জলদস্যুসহ বিভিন্ন কারণে ক্ষতিগ্রস্ত মৎস্যজীবী জেলে পরিবারকে পুনর্বাসনের দাবি জানান। ক্ষতিগ্রস্ত মৎস্যজীবীদের ক্ষতিপূরণ ও খাদ্য সহায়তা এবং মা ইলিশ ও ছোট মাছ রক্ষায় মাছ ধরা বন্ধ থাকার কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া জেলেদের প্রতি মাসে (ছয় মাস) ৪০ কেজি চালের পরিবর্তে ৬০ কেজি চাল এবং জেলেপ্রতি ১০ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদানের দাবি জানান তাঁরা।



সাতদিনের সেরা