kalerkantho

শুক্রবার । ১৪ মাঘ ১৪২৮। ২৮ জানুয়ারি ২০২২। ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

দুদকের তদন্ত কার্যক্রমে হতাশ হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিভিন্ন মামলায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) তদন্ত বা অনুসন্ধান কার্যক্রমের ধীরগতিতে হতাশা ব্যক্ত করেছেন হাইকোর্ট। আদালত এসব মামলায় দুদককে আরো গতিশীল ও কঠোর হতে বলেছেন। আদালত বলেছেন, দেশের দুর্নীতিচর্চা বন্ধ করতে কমিশনের আরো কঠোর হওয়া উচিত।

বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি মহিউদ্দিন শামীমের হাইকোর্ট বেঞ্চের এক রায়ে দুদক সম্পর্কে এ পর্যবেক্ষণ দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

কুড়িগ্রাম পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মমিনুর রহমান ও সহকারী প্রকৌশলী মো. জহিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে ঘুষসংক্রান্ত এক মামলায় ৭২ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায়ে হাইকোর্ট এ পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন।

রায়ে জহিরুল ইসলামকে নিম্ন আদালতের অব্যাহতির আদেশ বাতিল করা হয়েছে। একই সঙ্গে মামলাটির বিচারকাজ এক বছরের মধ্যে অথবা দ্রুত সময়ে সম্পন্ন করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। হাইকোর্ট গত ২৪ জানুয়ারি সংক্ষিপ্ত রায় দিলেও এর পূর্ণাঙ্গ রায় গতকাল সুপ্রিম কোর্টের নিজস্ব ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

রায়ের পর্যবেক্ষণে আদালত বলেছেন, দুর্নীতি করে ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং অনেক সরকারি দপ্তরের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মামলা হয়েছে। কিন্তু সেসব মামলার অনুসন্ধান, তদন্ত, বিচারপ্রক্রিয়া দ্রুত সম্পন্ন করতে দুদক ইতিবাচক কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।

আদালতের পর্যবেক্ষণে আরো বলা হয়েছে, কমিশন আইন একটি বিশেষ বিধান হলেও মামলা দায়েরের পর অনেক সময় অতিবাহিত হলেও বহু মামলায় দুদক নির্ধারিত সময়ের মধ্যে অভিযোগপত্র বা অনুসন্ধান প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেনি, যা স্পষ্টত আইনের লঙ্ঘন। এমনকি এসব ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট অনুসন্ধান বা তদন্তকারী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থাই নেয়নি কমিশন।



সাতদিনের সেরা