kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২ ডিসেম্বর ২০২১। ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

বনানীর ভবনে আগুনের উত্তাপ রাজধানীজুড়ে

দিনভর যানজট যন্ত্রণায় নগরবাসী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বনানীর ভবনে আগুনের উত্তাপ রাজধানীজুড়ে

রাজধানীর বনানীর চেয়ারম্যানবাড়িতে গতকাল সকালে ছয়তলা ভবনের তৃতীয় তলায় আগুন লাগলে ফায়ার সার্ভিসের ১৫টি ইউনিট নেভানোর চেষ্টা চালায় (বাঁয়ে); এ সময় বিমানবন্দর সড়কে গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে রাজধানীজুড়ে তীব্র যানজট দেখা দেয়। এতে নগরবাসীকে পড়তে হয় দুর্ভোগে। ছবি : কালের কণ্ঠ

রাজধানীর বনানীর চেয়ারম্যানবাড়ি রোডে অবস্থিত একটি ছয়তলা বাণিজ্যিক ভবনের তৃতীয় তলায় অগ্নিকাণ্ড ঘটনা ঘটেছে। গতকাল শনিবার সকাল পৌনে ৯টার দিকে আগুনের সূত্রপাত হয়। ফায়ার সার্ভিসের ১৫টি ইউনিট এবং বিমানবাহিনীর সদস্যরা প্রায় চার ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হন। এ ঘটনায় ওই এলাকার প্রধান সড়কে গাড়ির জটলা শুরু হয়ে বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। তাতে দিনভর ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে রাজধানীবাসীকে।

ভবনের ভেতরে সলিউশন কাট, পিতল ও অনেক দাহ্য পদার্থ থাকায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে দেরি হয়েছে। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাজ্জাদ হোসাইন বলেন, ‘ভবনটির দুই ও তিন তলায় আগুন লাগার ঘটনা ঘটছে। এখানে এমিকন নামের একটি প্রতিষ্ঠানের শোরুম ও কারখানা ছিল, যেখানে প্রচুর পরিমাণে দাহ্য পদার্থ ছিল। ফলে আগুন নেভাতে বেগ পেতে হয়েছে। কোনো ধরনের হতাহতের খবর আমরা পাইনি। ক্ষয়ক্ষতির বিষয় এবং অন্যান্য বিষয় তদন্তের পরে বলা যাবে। তদন্ত প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এদিকে সকালে বনানীর চেয়ারম্যানবাড়ি এলাকায় অগ্নিকাণ্ডের পর বনানীর প্রধান সড়কে গাড়ির যে জটলা শুরু হয়েছিল তা বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়ায় দিনভর ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে রাজধানীবাসীকে। রাস্তার ওপরই প্রখর রোদের মধ্যে বিভিন্ন যানবাহনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা তাদের পার করতে হয়েছে।

ট্রাফিক সূত্র জানায়, আগুন লাগার কারণে ভবনটির সামনের সড়ক কয়েক ঘণ্টা বন্ধ রাখতে হয়েছে। একদিকের সড়ক বন্ধ হয়ে যাওয়ায় যানজট সৃষ্টি হয় রাজধানীজুড়ে। প্রায় চার ঘণ্টার চেষ্টায় দুপুর ১টার দিকে ফায়ার সার্ভিস যখন আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে তখন উত্তরা থেকে ফার্মগেট ও মহাখালীমুখী সড়কে এই যানজটে আটকা পড়ে হাজার হাজার মানুষ। আগুন লাগার পরপরই উত্তরা থেকে ফার্মগেটমুখী সড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দেয় পুলিশ। ফলে বনানী, ফার্মগেট, বিজয় সরণি, মহাখালী, তেজগাঁও, সাতরাস্তার মোড়, সোনারগাঁও, কারওয়ান বাজার, শাহবাগ, মগবাজারসহ আশপাশের রাস্তায় তীব্র যানজট তৈরি হয়। ঘণ্টার পর ঘণ্টা হাজার হাজার গাড়ি রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। পরিস্থিতির উন্নতি না দেখে অনেকে হেঁটেই গন্তব্যে রওনা হয়। ঢাকা মহানগর পুলিশের পরিদর্শক (ট্রাফিক) মো. সালাউদ্দিন গণমাধ্যমকে জানান, আগুন নিয়ন্ত্রণে আসার পর পরিস্থিতির উন্নতি হতে শুরু করেছে। তবে ট্রাফিকব্যবস্থা স্বাভাবিক হতে কয়েক ঘণ্টা সময় লাগতে পারে। বনানী থানার ওসি নূরে আজম কালের কণ্ঠকে বলেন, আগুনের ঘটনার পর মানুষের নিরাপত্তার জন্য রাস্তা বন্ধ রাখতে হয়েছে, যার কারণে দিনভর বনানীর রাস্তায় যানজট ছিল। বনানী এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে পুরো দিন লেগেছে।

এদিকে আইএসপিআর জানায়, বনানীর অগ্নিকাণ্ড নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর ৪৫ সদস্য ও চারটি পানিবাহী গাড়ি ফায়ার সার্ভিসকে সহায়তা করেছে।



সাতদিনের সেরা