kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২ ডিসেম্বর ২০২১। ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

হাসপাতালে ভর্তি আরো ২১৩ জন ডেঙ্গু রোগী

আইইডিসিআরে ২২ মৃত্যুর তথ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দেশে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে আরো ২১৩ জন। এর মধ্যে ঢাকার ১৮৮ জন এবং ২৫ জন ঢাকার বাইরের। ডেঙ্গুতে মৃত্যু সন্দেহে ২২টি মৃত্যুর তথ্য পাঠানো হয়েছে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে (আইইডিসিআর)। তবে এখনো পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটি কোনো মৃত্যুর পর্যালোচনা করেনি।

গতকাল বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোলরুমের ডেঙ্গুবিষয়ক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ১ জানুয়ারি থেকে গতকাল পর্যন্ত দেশে মোট ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে পাঁচ হাজার ১৯২ জন এবং এই সময়ের মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পেয়েছে চার হাজার ২৬৩ জন। বর্তমানে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে মোট ডেঙ্গু রোগী ভর্তি রয়েছে ৯০৭ জন। এর মধ্যে ঢাকার ৪১টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে ৮৪১ জন। ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে আরো ৬৬ জন।

দেশে ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে মন্ত্রণালয়, সিটি করপোরেশনের মেয়র-কাউন্সিলর ও স্বেচ্ছাসেবীরা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

গতকাল মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব বন্ধে সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে প্রাণান্তকর চেষ্টা করে যাচ্ছি। তবে ডেঙ্গু থেকে বাঁচতে সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। তাই জনগণকে সচেতন করার জন্য আমরা সব ধরনের উদ্যোগ হাতে নিয়েছি। ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে একজনও মৃত্যুবরণ করুক এটা কারো কাম্য নয়। এসব অস্বাভাবিক মৃত্যু আমাদের ব্যথিত করে।’

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, ‘চিরুনি অভিযানের মাধ্যমে ডেঙ্গু রোগীর ঊর্ধ্বমুখী গতি নিম্নমুখী হয়েছে। আশা করছি, চিরুনি অভিযানের মাধ্যমে এডিস মশকের বিস্তার থেকে ঢাকাবাসীকে নিস্তার দিতে পারব।’ গতকাল সকালে দক্ষিণ সিটির ১ নম্বর ওয়ার্ডে খিলগাঁও রেলগেটসংলগ্ন অন্তর্বর্তীকালীন বর্জ্য স্থানান্তর কেন্দ্রের উদ্বোধন শেষে গণমাধ্যমের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন মেয়র। নগরবাসীকে এডিস মশার উৎসস্থল সম্পর্কে তথ্য দেওয়ার আহবান জানান তিনি।

এডিস নিধনে অভিযান চালাচ্ছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনও (ডিএনসিসি)। নিয়মিত পরিচালনা করছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। গতকাল উত্তরের মেয়র আতিকুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, ব্যক্তিগত, সরকারি কিংবা বেসরকারি যেকোনো স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেলে জরিমানাসহ প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। ভবিষ্যতেও এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।



সাতদিনের সেরা