kalerkantho

সোমবার ।  ২৩ মে ২০২২ । ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২১ শাওয়াল ১৪৪৩  

পর্বতারোহী রত্নার মৃত্যুর এক বছর

অভিযোগপত্র দাখিলের ১০ মাস পরও শুরু হয়নি বিচার

মাসুদ রানা   

৭ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পর্বতারোহী, সাইক্লিস্ট রেশমা নাহার রত্নার (৩৩) মৃত্যুর এক বছর আজ শনিবার। গত বছর এই দিনে সাইক্লিং করে বাসায় ফেরার পথে গাড়িচাপায় মৃত্যু হয় তাঁর। এ ঘটনায় মামলার তদন্ত শেষে মাইক্রোবাসচালক এস এম দারুস সালামকে একমাত্র আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়। এর ১০ মাস পরও শুরু হয়নি মামলার বিচার।

বিজ্ঞাপন

মামলার বাদী ও রত্নার দুলাভাই মো. মনিরুজ্জামান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘রত্না পরিবারের ছোট সন্তান হওয়ায় তার প্রতি সবার অন্য রকম ভালোবাসা ছিল। তার অপ্রত্যাশিত মৃত্যুর শোক এখনো কাটেনি। রত্নার মৃত্যুর পর থেকে আমার শ্বশুর (রত্নার বাবা) মানুষের সঙ্গে কম কথা বলেন। উনি এখনো শোকাহত অবস্থায় আছেন। যে অপরাধী সে অপরাধী। অপরাধীর বিচার হওয়া উচিত নয়। আমরা শতভাগ ন্যায়বিচার চাই। ’

মামলা সূত্রে জানা যায়, সর্বশেষ গত ৫ এপ্রিল আসামি এস এম দারুস সালামের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে স্বাভাবিক বিচার কার্যক্রম না চলায় এ অভিযোগ গঠন শুনানি অনুষ্ঠিত হয়নি। তবে বিচার কার্যক্রম স্বাভাবিক হলে এ মামলার নতুন দিন ধার্য হবে। গাড়িচাপায় রত্না নিহত হওয়ার ঘটনায় শেরেবাংলানগর থানায় সড়ক পরিবহন আইনে মামলা করা হয়। পরে গত বছরের ২৭ আগস্ট আসামি দারুস সালামকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর আদালত তাঁর দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আসামি এই দুর্ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন। এ মামলার তদন্ত শেষে গত বছরের ৫ অক্টোবর শেরেবাংলানগর থানার উপপরিদর্শক (নিরস্ত্র) মো. মোবারক আলী ২০ জনকে সাক্ষী করে মাইক্রোবাসচালক দারুস সালামের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেন। অন্য আসামি মো. নাইমের বিরুদ্ধে অপরাধ প্রমাণের মতো কোনো সাক্ষ্য-প্রমাণ না পাওয়ায় তাঁকে মামলা থেকে অব্যাহতির জন্য আবেদন করা হয়। এরপর ২৮ ডিসেম্বর ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম জুলফিকার হায়াত মামলাটি ঢাকা মহানগর হাকিম জিয়াউর রহমানের আদালতে বদলি করেন।



সাতদিনের সেরা