kalerkantho

শনিবার । ১৫ মাঘ ১৪২৮। ২৯ জানুয়ারি ২০২২। ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

প্রয়াণবার্ষিকীতে অনুরাগ শ্রদ্ধায় রবীন্দ্র স্মরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রবল অনুরাগ ও অকুণ্ঠ শ্রদ্ধায় স্মরণ করা হলো বাঙালির প্রাণের মানুষ বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে। বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে  কবিগুরুর ৮০তম প্রয়াণবার্ষিকী উপলক্ষে শারীরিক উপস্থিতিতে কোথাও কোনো অনুষ্ঠান হয়নি। তবে গতকাল শুক্রবার বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান অনলাইন আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

বাংলা একাডেমি আয়োজিত অনুষ্ঠানে ‘পূর্ববঙ্গ থেকে বাংলাদেশ : রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও শেখ মুজিবুর রহমান’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন।

বিজ্ঞাপন

আলোচনায় অংশ নেন অধ্যাপক বেগম আকতার কামাল ও অধ্যাপক অনীক মাহমুদ। ‘আমারে তুমি অশেষ করেছ’ শীর্ষক রবীন্দ্রসংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী অদিতি মহসিন এবং রবীন্দ্রকবিতা ‘অনুগ্রহ’ আবৃত্তি করেন বাচিকশিল্পী রুবীনা আজাদ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতিবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। স্বাগত ভাষণ দেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা।

কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন বলেন, পূর্ববঙ্গ থেকে বাংলাদেশ—দুজন মহান মানুষের ছিল স্বপ্নের ভূমি। তাঁরা পূর্ববঙ্গ আলোকিত করে নিজেদের প্রজ্ঞা ও জ্ঞান ছড়িয়েছেন বাঙালির মানব সচেতনতায়। উপহার দিয়েছেন স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। বাঙালি জাতিকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন আন্তর্জাতিক বিশ্বে। ১৯১৩ সালে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতিসংঘে বাংলা ভাষায় ভাষণ প্রদান করেন স্বাধীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে। এভাবে এই দুজনের মাধ্যমেই মূলত বাংলা-বাঙালির দিগদর্শন ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বের মানচিত্রে।

জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘১৯৬১ সালে রবীন্দ্র জন্মশতবার্ষিকীতে পাকিস্তানি শাসকচক্রের চরম বৈরিতার মধ্যেও আমরা বাঙালিত্বের চেতনায় উদ্বুদ্ধ রবীন্দ্রনাথকে স্মরণ করেছি। আমাদের এ সংগ্রামে প্রেরণা ছিলেন বঙ্গবন্ধু। কারণ তিনি রবীন্দ্রনাথকে তাঁর জীবনচেতনার সঙ্গী করেছেন, আর রবীন্দ্রভুবন ক্রমেই আমাদের জাতীয় মুক্তির সংগ্রামে আলোকবর্তিকা হয়ে কাজ করেছে। তাই আজও একটি মাঙ্গলিক সুন্দর সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে রবীন্দ্রনাথ ও বঙ্গবন্ধু আমাদের চিরপ্রেরণার অনন্ত উৎস। ’

প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, ‘আগস্ট বাঙালির শোকের মাস। এই মাসে আমরা রবীন্দ্রনাথ আর নজরুলকে হারিয়েছি। হারিয়েছি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। ’

ছায়ানটের স্মরণ : ‘শ্রাবণের আমন্ত্রণে’ শীর্ষক অনুষ্ঠান সাজানো হয় সংগীত, নৃত্য ও আবৃত্তি দিয়ে। রবীন্দ্রনাথের বৃষ্টির গানের সুরমূর্ছনায় অনলাইন অনুষ্ঠানটি মাতিয়ে তোলেন ছায়ানটের শিল্পীরা। এ ছাড়া আলোচনা ও সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজন করে উদীচী। আজ শনিবার রাত ৮টায় অনলাইন ‘স্মরণোৎসব’ আয়োজন করেছে বাংলাদেশ সংগীত সংগঠন সমন্বয় পরিষদ।



সাতদিনের সেরা