kalerkantho

সোমবার ।  ২৩ মে ২০২২ । ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২১ শাওয়াল ১৪৪৩  

চার ইউনিয়নে আজ গণটিকা শুরু করা যাচ্ছে না

নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান   

৭ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বান্দরবান পার্বত্য জেলার সব এলাকায় গণটিকাদান কার্যক্রমের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। তবে তিনটি উপজেলার চারটি ইউনিয়নে নির্ধারিত সময়ে (আজ শনিবার) এই কার্যক্রম শুরু করা যাচ্ছে না।

বান্দরবানের সিভিল সার্জন অংসুইপ্রু মারমা জানিয়েছেন, গতকাল শুক্রবার বিকেলে সব কয়টি উপজেলা সদরে ভ্যাকসিন (টিকা) পাঠানো গেলেও দুর্গম যোগাযোগব্যবস্থার কারণে রুমা উপজেলার রেমাক্রি-প্রাণশা, আলীকদমের পোয়ামুহুরী এবং থানচি উপজেলার তিন্দু ও রেমাক্রি ইউনিয়নে আজ বিকেলের আগে ভ্যাকসিন পৌঁছানো সম্ভব হবে না। তিনি বলেন, ‘এসব এলাকায় ৮ ও ৯ আগস্টেও গণটিকাদানের প্রস্তুতি আমরা নিয়ে রেখেছি।

বিজ্ঞাপন

বান্দরবান সদর হাসপাতালসংলগ্ন ইপিআই সেন্টার থেকে উপজেলাগুলোতে ভ্যাকসিন পাঠানো হয়। গতকাল সকালে সেখানে গিয়ে দেখা গেল, সিভিল সার্জনের উপস্থিতিতে তাপ নিয়ন্ত্রিত প্যাকেটজাত করে নিজ নিজ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অ্যাম্বুল্যান্সে করে সিনোফার্মের ভ্যাকসিনের পাশাপাশি অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা পাঠানো হচ্ছে।

সিভিল সার্জন জানান, গত বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে ৩২ হাজার ৮০০ ভায়াল সিনোফার্মের টিকা এবং চার হাজার ভায়াল অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা পাওয়া গেছে। এ কারণে গণটিকার পাশাপাশি অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার প্রথম ডোজ গ্রহণকারীদের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হবে।

তিনি জানান, জেলার ৩৩টি ইউনিয়ন এবং বান্দরবান পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে মোট ১০৫টি বুথের মাধ্যমে গণটিকাদান কার্যক্রম চালানো হবে। এসব বুথে ২১০ জন টিকাদানকারী ও ৩১৫ জন স্বেচ্ছাসেবী কাজ করবেন।



সাতদিনের সেরা