kalerkantho

শুক্রবার । ৬ কার্তিক ১৪২৮। ২২ অক্টোবর ২০২১। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সাংবাদিক সাহিত্যিক সন্তোষ গুপ্তের ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

৬ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সাংবাদিক সাহিত্যিক সন্তোষ গুপ্তের ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

বরেণ্য সাংবাদিক-সাহিত্যিক, দৈনিক সংবাদের সাবেক জ্যেষ্ঠ সহকারী সম্পাদক সন্তোষ গুপ্তের ১৭তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০০৪ সালের এই দিনে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে সন্তোষ গুপ্ত স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে সকাল ৯টায় পোস্তগোলায় নির্মিত ‘সন্তোষ গুপ্ত স্মৃতিস্মম্ভে’ পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হবে। তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকেও স্মৃতিস্মম্ভে শ্রদ্ধা জানানো হবে।

৮০ বছর বয়সে এই পৃথিবী ছেড়ে সন্তোষ গুপ্তের চলে যাওয়া, তাঁর চারপাশের মানুষের জন্য এক বিরাট শূন্যতার সৃষ্টি করে। একটি যুগের অবসান ঘটে। বাংলাদেশের সংবাদপত্র জগতে সন্তোষ গুপ্ত একটি উজ্জ্বল নক্ষত্রের নাম। নিষ্ঠাবান সাংবাদিক, চিন্তাশীল লেখক, অগাধ পাণ্ডিত্যের অধিকারী ও অত্যন্ত সংবেদনশীল মানুষ ছিলেন তিনি। বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতায় তাঁর পদযাত্রা ছিল অপরিমেয় মেধা ও দক্ষতাপূর্ণ। রাজনৈতিক চেতনায় অভিষিক্ত হয়ে তিনি সাংবাদিকতা পেশায় ভিন্নমাত্রা যোগ করেছিলেন। পত্রিকায় তাঁর রাজনৈতিক ভাষ্য অনেক রাজনৈতিক নেতার জন্য ছিল এক ধরনের দিকনির্দেশনা।

সৎ ও সাহসী সাংবাদিকতার পথিকৃৎ সন্তোষ গুপ্তের অবাধ বিচরণ ছিল শিল্প-সাহিত্য অঙ্গনে। কবিতা, শিল্পকলা, চিত্রকলা, রাজনীতি, সাহিত্য, সাংবাদিকতাসহ বিভিন্ন বিষয়ে তাঁর ১৮টি গ্রন্থ রয়েছে। সম্পাদনা করেছেন বহু গ্রন্থ। তাঁর অসংখ্য লেখা এখনো অগ্রন্থিত। সাংবাদিকতা ও সাহিত্যে অবদান রাখায় তিনি স্বাধীনতা পদক পেয়েছেন। এ ছাড়া তিনি একুশে পদক, শেরেবাংলা পদক, বঙ্গবন্ধু পদক, মাওলানা তর্কবাগীশ পদক, জহুর হোসেন স্মৃতি পদকসহ বহু পুরস্কার ও সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন।

সন্তোষ গুপ্তর জন্ম ১৯২৫ সালের ৯ জানুয়ারি ঝালকাঠির রুনসী গ্রামে। ১৯৫৭ সালে তিনি সাংবাদিকতায় আসেন। এর আগে বামধারার রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। রাজনৈতিক কারণে তাঁকে প্রায় ১২ বছর কারাবরণ করতে হয়েছে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

 



সাতদিনের সেরা