kalerkantho

রবিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৮। ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৮ সফর ১৪৪৩

বাবা-মেয়ের স্যালুট বিনিময়

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর   

৩ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাবা-মেয়ের স্যালুট বিনিময়

প্রত্যেক মা-বাবাই চান সন্তান যেন তাঁকে ছাপিয়ে যায়। রংপুরের গঙ্গাচড়া মডেল থানায় কর্মরত সাব-ইন্সপেক্টর আব্দুস সালামের চাওয়াটাও ব্যতিক্রম ছিল না। তবে প্রাপ্তিটা যেন প্রত্যাশাকেও ছাড়িয়ে গেছে। তাঁর কন্যারত্নটি এখন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একজন ক্যাপ্টেন, চিকিৎসক। পুলিশের পোশাক পরিহিত বাবার সামনে দাঁড়িয়ে সেনা পোশাক পরিহিত কন্যার স্যালুট বিনিময়ের একটি দৃশ্য এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল।

আবেগঘন মুহূর্তটি ক্যামেরাবন্দি করে পোস্ট করা হয়েছে জেলা পুলিশ রংপুরের ফেসবুক পেজে। পোস্টের ক্যাপশনে লেখা হয়েছে—অভিনন্দন! পিতা সাব-ইন্সপেক্টর আব্দুস সালাম, গঙ্গাচড়া থানা, রংপুর ও মেয়ে ক্যাপ্টেন ডা. শাহনাজ পারভীনকে। সন্তানকে ধৈর্য, কষ্টসহিষ্ণু ও নৈতিক আদর্শের প্রতীক হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে পারলেই শুধু এ ধরনের অসাধারণ মুহূর্তের উদ্ভব হয়। জেলা পুলিশ রংপুরের পক্ষ থেকে আবারও পিতা ও কন্যাকে আন্তরিক অভিনন্দন।

পোস্টের কমেন্ট সেকশন ভরে গেছে অভিনন্দন বার্তায়। একজন লিখেছেন, ‘অসাধারণ, মুখে কোনো ভাষা নেই আমার। সম্মানিত পিতা, সম্মানিত কন্যা আমার অভিবাদন গ্রহণ করুন।’ আরেকজন লিখেছেন, ‘অসাধারণ মুহূর্ত! গর্বিত বাবা-মা এবং তাঁদের সন্তানকে স্যালুট। আপনাদের জন্য শুভ কামনা।’ একজন পুলিশ সদস্য লিখেছেন, ‘এ অর্জন শুধু এসআই আব্দুস সালাম স্যারের নয়। এ অর্জন আমাদের। সমগ্র পুলিশ বাহিনীর। যারা ক্লান্তিহীন, শ্রান্তিহীনভাবে ২৪ ঘণ্টায় ১৮ থেকে ১৯ ঘণ্টা দেশের মানুষের কল্যাণে ডিউটি করার পর নিজের পরিবারকে দেওয়ার মতো একটু সময় পায় না।’

সম্প্রতি ভারতের অন্ধ্র প্রদেশে এক বাবা ও মেয়ের একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। ছবিটি ছিল পুলিশ ইন্সপেক্টর ওয়াই শ্যামসুন্দর ও তাঁর মেয়ে পুলিশের ডেপুটি সুপার জেসিস প্রশান্তির। ৪ থেকে ৭ জানুয়ারি পর্যন্ত চলা অন্ধ্র পুলিশের একটি সম্মেলন অনুষ্ঠানে শ্যামসুন্দর তাঁর মেয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে স্যালুট করেন। এই ঘটনা চোখে পড়ে যায় পুলিশ সুপারিনটেনডেন্ট রমেশ রেড্ডির। ছবিটি ফ্রেমবন্দি করেন। এরপর অন্ধ্র প্রদেশ পুলিশ ছবিটি টুইট করতেই তা ভাইরাল হয়ে পড়ে।

জানা যায়, শাহনাজ পারভীন রংপুর মেডিক্যাল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাস করে সেনাবাহিনীতে ক্যাপ্টেন পদে যোগ দেন। কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার চন্দ্রখানা গ্রামের বাসিন্দা আব্দুস সালাম পুলিশে যোগদান করেন ১৯৯০ সালে।



সাতদিনের সেরা