kalerkantho

রবিবার । ১ কার্তিক ১৪২৮। ১৭ অক্টোবর ২০২১। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সংক্ষিপ্ত

প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা প্রদানে যেন স্বজনপ্রীতি না হয়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা প্রদানে যেন স্বজনপ্রীতি না হয়

প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা প্রদানে যেন স্বজনপ্রীতি না হয় এবং প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের হাতে পৌঁছয়, সেদিকে কঠোরভাবে সতর্ক থাকতে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি গতকাল বুধবার সকালে নিজের সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংকালে এই আহবান জানান। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এরই মধ্যে লকডাউনে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় মানুষের সহায়তা, গ্রামীণ কর্ম-সৃজন, পর্যটন খাত এবং পরিবহন শ্রমিক ও খেটে খাওয়া মানুষের জন্য তিন হাজার ২০০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা দিয়েছেন। সত্যিকার অর্থে ক্ষতিগ্রস্তরা যাতে তালিকাভুক্ত হয়, সেদিকে সর্বোচ্চ মনোযোগ দিতে হবে।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা প্রদানে যাতে স্বজনপ্রীতি না হয়, সেদিকে সতর্ক থাকার কঠোর নির্দেশনা রইল। এ ক্ষেত্রে কোনো অনিয়ম সহ্য করা হবে না।’ ঈদ যাত্রায় মানুষের ভোগান্তি কমানোর পাশাপাশি খেটে খাওয়া মানুষের আর্থিক নিরাপত্তা এবং ঈদকে ঘিরে অর্থনীতির প্রবাহ গতিশীল রাখতে সরকার লকডাউন শিথিল করার এই উদ্যোগ নিয়েছে বলে জানান সেতুমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘মনে রাখতে হবে, সাময়িক এই বিধি-নিষেধ শিথিলের সুযোগ নিয়ে আমরা যেন গড্ডলিকাপ্রবাহে গা না ভাসাই। এ পরিস্থিতিতে নিজেই হতে হবে নিজের রক্ষক। নিজেদের উদাসীনতা এবং অপরিণামদর্শিতায় উৎসবের যাত্রা যেন জীবনের শেষ যাত্রায় রূপ না নেয়। ঈদকে সামনে রেখে প্রধানমন্ত্রী লকডাউনে ব্রেক দিলেও করোনা কাউকে ব্রেক দেবে না, প্রাণঘাতী রূপ নিয়ে সংক্রমণ ছড়াবেই। তাই শতভাগ মাস্ক পরার কোনো বিকল্প নেই।’



সাতদিনের সেরা