kalerkantho

বুধবার । ১১ কার্তিক ১৪২৮। ২৭ অক্টোবর ২০২১। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

গ্রামীণের চিংড়িঘেরে লুট চলছেই

বিশেষ প্রতিনিধি, কক্সবাজার   

৯ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কক্সবাজারের চকরিয়ায় নোবেল জয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস প্রতিষ্ঠিত গ্রামীণ মৎস্য ও পশু সম্পদ ফাউন্ডেশনের ৩০০ একর চিংড়িঘেরে লুটপাট অব্যাহত আছে। প্রতি রাতেই ঘেরের মালপত্র লুট করছে সন্ত্রাসীরা। গতকাল সকাল পর্যন্ত ইঞ্জিনচালিত কয়েকটি নৌকায় আলমারি, খাট, অফিসকক্ষের ফার্নিচার ও মূল্যবান কাগজপত্র লুট করে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।

কক্সবাজারের চকরিয়ার সুন্দরবনখ্যাত রামপুর মৌজার চিংড়ি জোনে এটি গ্রামীণ ব্যাংক ঘের হিসেবে পরিচিত। দেশের সর্বপ্রথম আধা নিবিড় (সেমি ইনটেনসিভ) পদ্ধতিতে চিংড়ি চাষ শুরু হয়েছিল এই ঘেরে।

গত ৫ জুলাই রাতে ৩৫ থেকে ৪০ জনের দুর্বৃত্ত ওই চিংড়িঘের দখলে নিয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মারধর করে তাড়িয়ে দেয়। এই ঘটনায় ৬ জুলাই রাতে ওই প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপক উৎপল কান্তি চৌধুরী বাদী হয়ে চারজনের নাম উল্লেখের পাশাপাশি আরো ৩৫-৪০ জনকে আসামি করে একটি এজাহার দায়ের করেন। ঘটনার তিন দিন পার হলেও পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

ঘের থেকে বিতাড়িত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জানিয়েছেন, প্রশাসনের কোনো ধরনের তৎপরতা না থাকায় তাঁরা আতঙ্কের মধ্যে আছেন। আর চকরিয়া থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের জানিয়েছেন, গ্রামীণ মৎস্য ও পশু সম্পদ ফাউন্ডেশনের কাছ থেকে তিনি লিখিত অভিযোগনামা (এজাহার) পেয়েছেন। এ বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ব্যবস্থাপক উৎপল কান্তি চৌধুরী জানান, থানায় লিখিত অভিযোগনামা দিয়ে তিনি নিজেও নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন। সন্ত্রাসীরা চিংড়িঘেরটি দখলের পর গত দুই দিনে অন্তত ১০ লাখ টাকার মাছও লুট করে নিয়েছে। ওই ঘেরে  গ্রামীণের একটি তিনতলাবিশিষ্ট ভবন ও আটটি সেমি পাকা ঘর রয়েছে। ওই সব ঘরের সব মালপত্র দুর্বৃত্তরা লুট করে নিয়েছে। প্রয়োজনীয় কাগজপত্রও লুট করেছে।