kalerkantho

শনিবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৭ নভেম্বর ২০২১। ২১ রবিউস সানি ১৪৪৩

মেয়েটি মায়ের কাছেই থাকবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



১০ বছরের এক কন্যাশিশুকে তার মায়ের জিম্মায় রাখারই নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। তবে শিশুটির বাবাও শিশুটির সঙ্গে দেখা করতে পারবেন। ওই শিশুর মায়ের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের একক হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল রবিবার এ আদেশ দিয়েছেন। আদালতে আবেদনকারীপক্ষে আইনজীবী ছিলেন ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সমরেন্দ্র নাথ বিশ্বাস।

জানা যায়, স্বামী-স্ত্রী দুজনই ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। ২০০৭ সালে তাঁরা ভালোবেসে বিয়ে করেন। ২০১১ সালে তাঁদের ঘরে জন্ম নেয় এক কন্যাসন্তান। কিন্তু মনোমালিন্যের জেরে দুই বছর আগে ২০১৯ সালে তাঁদের মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। তবে শিশুটি মায়ের আদরেই বড় হতে থাকে। এ অবস্থায় মেয়েকে নিজ হেফাজতে নিতে ঢাকার পারিবারিক আদালতে আবেদন করেন বাবা। এ আবেদন নামঞ্জুর করে গত ১৬ জুন এক আদেশে মেয়েটি মায়ের জিম্মায় থাকবে বলেই আদেশ দেন আদালত। কিন্তু এক দিন পরই পাল্টে যায় আদেশ। আগের আদেশ স্থগিত করে বাবার হেফাজতে দেওয়ার আদেশ দেন। আদেশে বলা হয়, আগামী ২১ দিন নাবালিকা বাবার হেফাজতে থাকবে। তবে মায়ের হেফাজতে থাকবে শুক্র ও শনিবার। সন্তানের অনলাইনে স্কুলের ক্লাসের ব্যবস্থা করবেন বাবা। বাদী ও বিবাদী এবং তাদের পিতা-মাতার বাসার পরিবেশ, কার বাসায় কে থাকেন ইত্যাদি বিষয়সহ সার্বিকভাবে সব দেখে ২১ দিনের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে হাজারীবাগ থানার ওসিকে নির্দেশ দেওয়া হয়।

এই অবস্থায় পারিবারিক আদালতের দ্বিতীয় আদেশ স্থগিত চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন শিশুটির মা। শুনানি শেষে হাইকোর্ট পারিবারিক আদালতের আদেশ ৩০ দিনের জন্য বা নিয়মিত আদালত খোলা পর্যন্ত স্থগিত করেন। তবে বাবা চাইলে মেয়ের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ দিতে হবে বলে আদেশে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে আদালত নিয়মিত খোলার পর বিষয়টি পরবর্তী আদেশের জন্য উপস্থাপন করতে আইনজীবীকে নির্দেশ দেওয়া হয়।



সাতদিনের সেরা