kalerkantho

রবিবার । ৪ আশ্বিন ১৪২৮। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১১ সফর ১৪৪৩

লকডাউনে রাজধানী ঢাকায় বাতাসের মানের উন্নতি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে চলমান লকডাউনে গত পাঁচ দিনে সরকারি-বেসরকারি উন্নয়ন কার্যক্রম, পরিবহন, কলকারখানা বন্ধ থাকায় ঢাকার বায়ুর মানের উন্নতি হয়েছে। বায়ুদূষণের উৎসগুলো কমে যাওয়ায় এ উন্নতি হয়েছে বলে মনে করছেন পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা। গতকাল শনিবার দুপুরে রিয়েল টাইম এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স (একিউআই) অনুযায়ী ঢাকার বায়ুমানের সূচক ছিল ৭০, যা গ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হয়।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক শরীফ জামিল বলেন, ‘লকডাউনে বায়ুর মানের উন্নতিতে আমাদের কাছে পরিষ্কার হলো যে ভবিষ্যতে বায়ুমান উন্নয়নে কোন কোন ক্ষেত্রে সরকারকে মনোযোগ দিতে হবে, সেটা চিহ্নিত হয়েছে। একই সঙ্গে সরকার যে নির্মল বায়ু আইন প্রণয়ন করার উদ্যোগ নিয়েছে, সেটা এগিয়ে নিতে হবে। জনসাধারণসহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে সম্পৃক্ত করে স্বল্পমেয়াদি, মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিতে হবে এবং তা সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে।’

পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের চেয়ারম্যান আবু নাসের খান বলেন, ‘লকডাউনে বিভিন্ন ধরনের যানবাহন বন্ধ রয়েছে। যানবাহন বন্ধ থাকায় দূষণও কমেছে। একই সঙ্গে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি অফিস, কলকারখানা বন্ধ থাকায় বর্তমানে বাতাসের মান অনেকটা উন্নত হয়েছে। তবে বর্তমান বায়ুর যে অবস্থা রয়েছে, লকডাউন শেষেও যেন তেমনটা থাকে, আমাদের সেই ব্যবস্থা নিতে হবে।’

একিউআই সূচকে ৫০-এর নিচে স্কোর থাকলে বাতাসের মান আমাদের জন্য ভালো বা স্বাস্থ্যকর বলে বিবেচনা করা হয়। ৫১ থেকে ১০০ স্কোরের মধ্যে থাকলে বাতাসের মান গ্রহণযোগ্য বলে ধরে নেওয়া হয়। তবে একিউআই স্কোর ১০১ থেকে ১৫০ হলে শিশু, বয়স্ক ও অসুস্থ রোগীদের জন্য সংবেদনশীল ও স্বাস্থ্যঝুঁকির আশঙ্কা আছে বলে ধারণা করা হয়। একিউআই মান ২০১ থেকে ৩০০ হলে স্বাস্থ্য সতর্কতাসহ জরুরি অবস্থা হিসেবে বিবেচিত হয়। স্কোর ৩০১ থেকে ৫০০ বা তারও বেশি হলে বাতাসের মান মনে করা হয় ঝুঁকিপূর্ণ।