kalerkantho

বুধবার । ১১ কার্তিক ১৪২৮। ২৭ অক্টোবর ২০২১। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

কৃষি শ্রমিক পাঠানোর প্রস্তাব দিয়েছে ঢাকা

সৌদির বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

২৮ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সৌদি আরব ২০৩০ সালের মধ্যে এক হাজার কোটি বৃক্ষরোপণের কর্মসূচি নিয়েছে। ওই কর্মসূচি বাস্তবায়নে বাংলাদেশ থেকে কর্মী পাঠানোর প্রস্তাব দিয়েছে সরকার। সৌদি আরবে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী গতকাল রবিবার সৌদির আল কাসিম প্রদেশের গভর্নর প্রিন্স ফয়সাল বিন মিশাল বিন সউদ বিন আবদুল আজিজের সঙ্গে সাক্ষাতে ওই প্রস্তাব দেন।

রাষ্ট্রদূত বলেন, আল কাসিম প্রদেশ নানা রকম ফল, সবজি ও খেজুর উৎপাদনে অত্যন্ত প্রসিদ্ধ। এখানে বিভিন্ন কৃষি খামারে অনেক বাংলাদেশি শ্রমিক কাজ করছেন। বাংলাদেশও সবজি উৎপাদনে বিশ্বে তৃতীয় স্থানে রয়েছে এবং সবজি উৎপাদন ও কৃষিকাজে দক্ষ জনশক্তি বাংলাদেশের রয়েছে। রাষ্ট্রদূত আল কাসিম প্রদেশের কৃষি খামারে বাংলাদেশ থেকে প্রয়োজনে আরো কৃষি শ্রমিক নিয়োগের আহবান জানান।

এ সময় গভর্নর জানান, বাংলাদেশ থেকে ব্যবসায়ীরা এসে আল কাসিমে কৃষি পণ্য উৎপাদন ও তার বাণিজ্যিকীকরণ নিয়ে সম্ভাব্য আলোচনার জন্য সেখানকার চেম্বার অব কমার্সের সঙ্গে আলোচনা করতে পারে এবং এ ক্ষেত্রে তাঁর অফিস থেকে সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

সৌদি আরবে বাংলাদেশ দূতাবাস জানায়, আল কাসিম প্রদেশ পর্যটন ও সাংস্কৃতিক উৎসবের জন্য বিখ্যাত। রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের পর্যটন সুবিধা, কক্সবাজারের সমুদ্রসৈকত, সিলেটের চা বাগান ও সুন্দরবনের কথা উল্লেখ করে দুই দেশের মধ্যে পর্যটন বাড়ানোর আহবান জানান। রাষ্ট্রদূত বলেন, এতে ভাতৃপ্রতিম দুই দেশের মানুষের মধ্যে যোগাযোগ ও বন্ধন আরো দৃঢ় হবে।

রাষ্ট্রদূত আল কাসিমের বিভিন্ন মর্গে থাকা বাংলদেশিদের মৃতদেহ বাংলাদেশে দ্রুত ফেরত পাঠানোর ক্ষেত্রে সহায়তা চাইলে গভর্নর তাৎক্ষণিকভাবে তাঁর অফিসকে সংশ্লিষ্ট কফিলদের সঙ্গে যোগাযোগ করে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন।

আল কাসিম জেলে প্রায় ৩০ বাংলাদেশি বিভিন্ন অপরাধে বন্দি রয়েছেন উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী যাঁদের অপরাধ গুরুতর নয়, তাঁদের সাধারণ ক্ষমার অনুরোধ জানান। এ সময় গভর্নর গুরুত্বের সঙ্গে বিষয়টি বিবেচনা করে দেখবেন বলে জানান। এ ছাড়া গভর্নর বাংলাদেশ সরকারের নানাবিধ উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং ভাতৃপ্রতিম বাংলাদেশের  সঙ্গে সম্পর্ক আরো জোরদারের প্রতি গুরুত্বারোপ করেন।