kalerkantho

সোমবার । ৫ আশ্বিন ১৪২৮। ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১২ সফর ১৪৪৩

একনেকে ৪১৬৬ কোটি টাকার ১০ প্রকল্প অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রায় চার হাজার ১৬৬ কোটি ৬১ লাখ টাকার ১০টি প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে সরকার দেবে চার হাজার ১২৫ কোটি ৮২ লাখ টাকা এবং সংস্থার নিজস্ব অর্থায়ন থেকে আসবে ৪০ কোটি ৭৯ লাখ টাকা। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলানগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেকের সভায় এই ১০ প্রকল্পের অনুমোদন মেলে।

একনেক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে ‘গোপালগঞ্জের পল্লী এলাকার নিরাপদ পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন ব্যবস্থার উন্নয়ন’ প্রকল্পের অনুমোদন দিতে গিয়ে বলেন, ‘শুধু টিউবওয়েল স্থাপন করে মাটির নিচ থেকে পানি তুলে ব্যবহার না করে ভূ-উপরিস্থ পানি ব্যবহার করতে হবে। এ ছাড়া লবণাক্ত এলাকায় শস্য চাষাবাদ, খাবার এবং যেকোনো ব্যবহারে লবণাক্ত পানি থেকে দূরে থাকতে হবে।’

একনেক সভা-পরবর্তী ব্রিফিংয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান জানান, ‘সাপোর্ট টু জয়দেবপুর-দেবগ্রাম-ভুলতা-মদনপুর সড়ক (ঢাকা বাইপাস) পিপিপি’ প্রকল্পের প্রথম সংশোধনী প্রস্তাব অনুমোদন দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রকল্পটি বাস্তবায়নে এমনিতেই দেরি হয়েছে। তাই নির্দিষ্ট মেয়াদের মধ্যেই যাতে বাকি কাজ শেষ করা যায় সে জন্য প্রচেষ্টা নিতে হবে।’

নতুন প্রকল্পগুলোর মধ্যে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ‘নোয়াখালী সড়ক বিভাগাধীন ক্ষতিগ্রস্ত কবিরহাট-ছমির মুন্সীরহাট-সোনাইমুড়ী সড়ক (জেড-১৪১০) এবং সেনবাগ-বেগমগঞ্জ গ্যাসফিল্ড-সোনাইমুড়ী সড়ক (জেড-১৪৪৬) উন্নয়ন’ প্রকল্পটি ৩৭১ কোটি ১৬ লাখ টাকা খরচে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় সরকার বিভাগের ‘গোপালগঞ্জের পল্লী এলাকার নিরাপদ পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন ব্যবস্থার উন্নয়ন’ প্রকল্পটির ব্যয় ধরা হয়েছে ২৬১ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। স্থানীয় সরকার বিভাগের আরেকটি প্রকল্প হলো ‘গাজীপুর সিটি করপোরেশনের জন্য এবং বিভিন্ন অঞ্চলে বাস-ট্রাক টার্মিনাল নির্মাণের নিমিত্তে জমি অধিগ্রহণ’। একনেকে অনুমোদন পেয়েছে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের ‘সম্পূর্ণ বৃক্ষে উন্নত মানের আগর রেজিন সঞ্চয়ন প্রযুক্তি উদ্ভাবন’ প্রকল্প, যার খরচ ধরা হয়েছে ৬৭ কোটি ৯২ লাখ টাকা। স্থানীয় সরকার বিভাগের ‘গাজীপুর জেলা পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন’ প্রকল্পটি ৬৮৫ কোটি ব্যয়ে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় সরকার বিভাগের ‘গুরুত্বপূর্ণ গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প : জেলা টাঙ্গাইল’ প্রকল্পটি ৮৬৫ কোটি ৬৪ লাখ টাকা খরচে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের ‘রংপুর, নীলফামারী, পীরগঞ্জ শহর ও তত্সংলগ্ন এলাকায় গ্যাস বিতরণ পাইপলাইন নেটওয়ার্ক নির্মাণ’ প্রকল্পটি ২৫৮ কোটি ১১ লাখ টাকা ব্যয়ে অনুমোদন দেওয়া হয়।

সংশোধিত প্রকল্পগুলোর মধ্যে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ‘সাপোর্ট টু জয়দেবপুর-দেবগ্রাম-ভুলতা-মদনপুর সড়ক (ঢাকা বাইপাস) পিপিপি’ প্রকল্পটির প্রথম সংশোধন অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটির মূল খরচ ছিল ২৩৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা। এটি ৪৩৮ কোটি ২৪ লাখ টাকা খরচ বাড়িয়ে ৬৭৪ কোটি ৭৪ লাখ টাকায় অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের ‘বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের উন্নয়ন (প্রথম পর্যায়)’ প্রকল্পটির প্রথম সংশোধন অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটির মূল খরচ ৮০৫ কোটি ৮৯ লাখ টাকা। ৯০ কোটি ৬৩ লাখ টাকা বাড়িয়ে এর খরচ ধরা হয়েছে ৮৯৬ কোটি ৫২ লাখ টাকা। এ ছাড়া মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের ‘বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের উন্নয়ন’ প্রকল্পটির দ্বিতীয় সংশোধন অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটির মূল

খরচ ছিল ২৫৬ কোটি ৮৮ লাখ, প্রথম সংশোধনীতে করা হয় ৩০২ কোটি ১২ লাখ এবং দ্বিতীয় সংশোধনীতে ৩৪৬ কোটি ৩২ লাখ টাকা বাড়িয়ে করা হয়েছে ৬৪৮ কোটি ৪৪ লাখ।