kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

অভ্যন্তরীণ রাজনীতি আমার জানা ছিল না

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

২৩ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অভ্যন্তরীণ রাজনীতি আমার জানা ছিল না

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানকে ‘দীর্ঘদিনের বন্ধু’ হিসেবে উল্লেখ করে তাঁর সঙ্গে ভুল-বোঝাবুঝি নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ঢাকা-সিলেট রেললাইন প্রকল্পের মধ্যে যে সুনামগঞ্জের অভ্যন্তরীণ রাজনীতি রয়েছে, সেটা আমার জানা ছিল না। আমার দীর্ঘদিনের বন্ধু পরিকল্পনামন্ত্রী আব্দুল মান্নানের ভুল-বোঝাবুঝি নিয়ে আমি বিস্মিত। এ নিয়ে আমি পরিকল্পনামন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলব।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, ‘সিলেটের ঘটনাটি অতি ছোট, কিন্তু এটা নিয়ে এত  হৈচৈ কেন বুঝতে পারছি না।’

ড. মোমেন বলেন, ‘ছাতক থেকে সুনামগঞ্জে রেললাইন করার জন্য সেখানের পাঁচজন সংসদ সদস্য আমার অফিসে আসেন। এ সময় তাঁরা একটি আবেদনপত্র সঙ্গে আনেন। তখন তাঁরা আমাকে জানালেন আমি যদি এ বিষয়ে রেলমন্ত্রীকে লিখি তাঁরা খুশি হবেন। তখন আমি রেলমন্ত্রীকে ডিও লেটার দিই। কিন্তু ওখানে যে অভ্যন্তরীণ রাজনীতি আছে তা আমার জানা ছিল না।’

ড. মোমেন বলেন, ‘সুনামগঞ্জের অভ্যন্তরীণ রাজনীতির বিষয়ে আমি কিছু জানতাম না। মান্নানকে আমার জিজ্ঞাসা করা উচিত ছিল যে দেখো, ওরা আসছে। আমি কী করব। আমি তা করিনি। আমি খুব সরল মনে ডিও পাঠিয়ে দিয়েছি। আর এই ডিও মূল কন্ট্রোভার্সির কারণ।’

নিরাপত্তার জন্য প্রবাসীরা বন্দুক আনতে চান

নিরাপত্তা নিয়ে দুশ্চিন্তা থেকে প্রবাসী বাংলাদেশিরা বন্দুক নিয়ে দেশে আসতে চান বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। এক সপ্তাহের যুক্তরাষ্ট্র সফর শেষে গতকাল মঙ্গলবার ঢাকায় ফিরে তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

ড. মোমেন বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রে প্রবাসী নাগরিকদের সঙ্গে আমার আলাপ হয়েছে। তাঁরা আমাকে বলেছেন, দেশে আসার পর তাঁরা নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন। বিদেশ থেকে আসার পর সবাই মনে করে, টাকা-পয়সা নিয়ে এসেছেন। তাই নিরাপত্তার কারণে তাঁরা বন্দুক নিয়ে দেশে আসতে চান।’

ড. মোমেন বলেন, ‘প্রবাসী নাগরিকরা বিদেশে থেকেই জাতীয় পরিচয়পত্র চান। আমরা এটা নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলাপ করব।’