kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৩ আশ্বিন ১৪২৮। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১। ২০ সফর ১৪৪৩

শারীরিক উপস্থিতিতে নিম্ন আদালতে বিচারকাজ শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী গতকাল রবিবার সারা দেশের অধস্তন আদালতে শারীরিক উপস্থিতিতে বিচারকাজ শুরু হয়েছে। তবে শনিবার মধ্যরাতের কাছাকাছি সময়ে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা জারি করায় এর প্রভাব দেখা গেছে আদালত কার্যক্রমে। ফলে নিম্ন আদালতে আইনজীবী আর বিচারপ্রার্থীর খুব একটা বেশি ভিড় ছিল না। তবে ভার্চুয়াল শুনানির তুলনায় গতকাল কিছুটা বাড়তি উপস্থিতি ছিল।

গতকাল শুধু জামিন শুনানি হয়েছে আসামি আর আইনজীবীর শারীরিক উপস্থিতিতে। অন্যান্য ক্ষেত্রে আদালত দিন ধার্য করে আদেশ দিয়েছেন। আইনজীবীরা বলছেন, দু-এক দিন পর আগের চেহারায় দেখা যেতে পারে নিম্ন আদালত। দুই মাস পর বিচার কার্যক্রম স্বাভাবিক হওয়ায় আইনজীবীদের মাঝেও উচ্ছ্বাস দেখা গেছে।

ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক খোন্দকার মো. হযরত আলী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আদালত খুলে দেওয়ার দাবি ছিল আইনজীবীদের। আদালত বন্ধ থাকায় আইনজীবীরা একটা খারাপ অবস্থার ভেতরে ছিল। এতে শুধু আইনজীবীরা ক্ষতিগ্রস্ত না, বিচারপ্রার্থীরাও সমান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এখন শারীরিক উপস্থিতিতে বিচারকাজ শুরু হওয়ায় আদালত কার্যক্রম স্বাভাবিক হবে। এতে সবাই উপকৃত হবে।’

আইনজীবী নয়ন মিয়া বলেন, ‘আদালতে স্বাভাবিক বিচারকাজ বন্ধ থাকায় মামলার জট বাড়ার পাশাপাশি বিচারপ্রার্থীদের ভোগান্তি ও হয়রানি চরমে পৌঁছেছিল। এখন আদালত খুলে দেওয়ায় সব স্বভাবিক হয়ে যাবে।’

অ্যাডভোকেট খাদেমুল ইসলাম বলেন, ‘ঢাকার আদালত স্বভাবিক অবস্থায় ফেরেনি। তবে গত সপ্তাহের অন্যান্য দিনের তুলনায় আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীদের উপস্থিতি কিছুটা বেড়েছে। এর কারণ সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী আজ (গতকাল) আসামিদের উপস্থিতিতেই জামিন আবেদনের শুনানি হয়েছে। এ কারণে জামিন আবেদনকারী ও আইনজীবীদের উপস্থিতি দেখা গেছে।’ তিনি জানান, ঢাকার আদালতপাড়ার উপচে পড়া ভিড় দেখতে হলে কয়েক দিন অপেক্ষা করতে হবে।

শারীরিক উপস্থিতিতে নিম্ন আদালতে সব বিচারকাজ পরিচালনার বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মো. আলী আকবরের স্বাক্ষরে শনিবার রাতে নির্দেশনা জারি করা হয়। তবে যেসব এলাকায় স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে সেসব এলাকায় ভার্চুয়ালি বিচারকাজ পরিচালনা করতে বলা হয়েছে।

করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে গত ৫ এপ্রিল থেকে সারা দেশে নিম্ন আদালতে স্বাভাবিক বিচারকাজ বন্ধ ঘোষণা করে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন।