kalerkantho

রবিবার । ৮ কার্তিক ১৪২৮। ২৪ অক্টোবর ২০২১। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ত্ব-হার বন্ধুর বাসায় আত্মগোপনে থাকা নিয়ে রহস্য!

আত্মগোপনে ত্ব-হার সঙ্গে থাকা ফিরোজ

গাইবান্ধা প্রতিনিধি   

২০ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



১০ দিন নিখোঁজ থাকার পর রংপুর থেকেই গত শুক্রবার উদ্ধার হন আলোচিত ধর্মীয় বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান ও তাঁর তিন সঙ্গী। তিনি রংপুর থেকেই নিখোঁজ হয়েছিলেন। তবে পুলিশের কাছে স্বীকারোক্তিতে জানান, তিনি গাইবান্ধার বোয়ালী ইউনিয়নের ত্রিমোহনীতে সিয়াম নামের এক বন্ধুর বাড়িতে ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে ছিলেন। এদিকে ত্ব-হার সঙ্গে থাকা মো. ফিরোজ আলমকে বগুড়ার শিবগঞ্জ থানায় তাঁর ফেরার খবর জানানোর কথা থাকলেও তিনি আসেননি এবং আত্মগোপনে আছেন।

গতকাল শনিবার ত্ব-হা কেন গাইবান্ধায় ছিলেন, সে প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে সিয়ামের বাড়িতে ভিড় করেছিলেন গণমাধ্যমকর্মীরা। সিয়ামের মা নিশাত নাহার সে সময় বাড়িতে ছিলেন। তিনি বলেন, আগেও কয়েকবার তাঁর ছেলে সিয়ামের সঙ্গে তাঁদের বাসায় এসেছেন ত্ব-হা। এলাকার মসজিদে খুতবা পড়াতেন তখন। এলাকায় তাঁর মাহফিলও করার কথা ছিল। কিন্তু এবার এসে তাঁরা বাড়ি থেকে বের হননি। তিনি আরো বলেন, ত্ব-হা তাঁকে জানিয়েছেন, তাঁর ক্ষতি করার জন্য তাঁকে অনুসরণ করা হচ্ছে এবং ত্ব-হা এ নিয়ে ভীত ছিলেন। তাঁর সঙ্গে আব্দুল মুকিত, মো. ফিরোজ আলম ও গাড়িচালক আমির উদ্দিন ফয়েজও ওই বাড়িতেই ছিলেন।

নিশাত নাহার জানান, রংপুর লায়ন স্কুল অ্যান্ড কলেজে মাধ্যমিক পর্যায়ে পড়ার সময় সিয়াম ও ত্ব-হার বন্ধুত্ব হয়।

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন এলাকাবাসী জানায়, গাইবান্ধার ত্রিমোহনীতে সিয়ামের বাড়িতে এর আগেও ত্ব-হা অনেকবার এসেছেন এবং এলাকার ধর্মীয় কাজে যোগ দিতেন। এবার তাঁকে বাইরে দেখা যায়নি।

এদিকে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় ত্ব-হার সঙ্গে থাকা আরেক ব্যক্তি মো. ফিরোজ আলমকে বগুড়ার শিবগঞ্জ থানায় আসার জন্য বলা হয়। কিন্তু তিন থানায় না এসে আত্মগোপনে আছেন বলে জানান শিবগঞ্জ থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম। ফিরোজ আলমের বাড়ি বগুড়ার শিবগঞ্জের কিচক ইউনিয়নের ছাতিয়ানপাড়ায়। তিনি এলাকার আনিছুর রহমানের ছেলে। তিনি গত ১৪ জুন ফিরোজ নিখোঁজ হলে শিবগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

ওসি সিরাজুল ইসলাম জানান, ফিরোজ শিবগঞ্জের মোকামতলা এলাকায় কোনো এক আত্মীয়ের বাড়িতে ছিলেন। শুক্রবার সকালে খোঁজ পাওয়া গেলে তাঁকে থানায় ডাকা হয়েছে বিষয়টি জানানোর জন্য। কিন্তু তিনি থানায় না এসে সেখান থেকেই আত্মগোপন করেছেন।

ওসি আরো বলেন, ফিরোজের বাবা ভুল তথ্য দিয়ে থানায় জিডি করেছেন। তিনি রংপুরে নিখোঁজ হলেও তাঁর বাবার জিডিতে শিবগঞ্জের কথা লেখা ছিল। এ বিষয়টি জানানোর জন্যই বাবাসহ তাঁকে থানায় ডাকা হয়েছিল।



সাতদিনের সেরা