kalerkantho

রবিবার । ৮ কার্তিক ১৪২৮। ২৪ অক্টোবর ২০২১। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

মিতু হত্যার কারণ এখনো অজানা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আরপি গ্রুপের পরিচালক ইসরাত জেবিন মিতুর (২৮) মৃত্যুরহস্যের জট এখনো খোলেনি। রাজধানীর গুলশানের একটি বহুতল ভবনের নিচ থেকে গত সোমবার তাঁর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে, হত্যা না আত্মহত্যা—তা জানতে তদন্ত এখনো চলছে।

গুলশান থানার ওসি আবুল হাসান জানান, মিতুর বাবা আব্দুল মুকিত দেওয়ানের মামলার সূত্র ধরে তদন্তকাজ চলছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে কিছুটা পরিষ্কার হওয়া যাবে। ওই বাড়ির সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। পারিবারিক কলহের বিষয়েও খোঁজ নেওয়া হচ্ছে।

গুলশান-২-এর ৬৯ নম্বর রোডের ৯ নম্বর বাড়ির সুইমিংপুলের পাশে মিতুর লাশ পাওয়া যায়। মিতুর শ্বশুরপক্ষের দাবি, মিতু আত্মহত্যা করেছেন। মিতুর স্বামী নাঈম আহম্মেদ আরপি গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। এই দম্পতির দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

মিতুর পরিবারের দাবি, তাঁদের মেয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে তাঁরা বিশ্বাস করেন না। মিতুকে শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলার কোদালপুরে গ্রামের বাড়িতে মিতুর লাশ দাফন করা হয়েছে।

মিতুর মামা মো. মাসুদ জানান, মিতুর সঙ্গে স্বামীর পারিবারিক দ্বন্দ্ব ছিল। দুই পরিবার অর্থনৈতিকভাবে সমান না হওয়ায় এই দ্বন্দ্ব চলছিল। সন্তান রেখে কারো অন্তত আত্মহত্যা করার কথা না।



সাতদিনের সেরা