kalerkantho

শুক্রবার । ৬ কার্তিক ১৪২৮। ২২ অক্টোবর ২০২১। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

‘অনুসরণের পর নিখোঁজ হওয়া রহস্যজনক’

বিভিন্ন স্থানে খোঁজ নিয়েও ত্ব-হার হদিস মেলেনি সংবাদ সম্মেলনে স্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘অনুসরণের পর নিখোঁজ হওয়া রহস্যজনক’

নিখোঁজ ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনানের খোঁজ মেলেনি গতকাল বুধবার পর্যন্ত। তাঁর স্বজনরা বলছেন, অনুসরণের পর আদনানের নিখোঁজ হওয়া রহস্যজনক।

প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ে যোগাযোগ করেও স্বামীর খোঁজ না পেয়ে আদনানের স্ত্রী সাবিকুন নাহার সারা গতকাল ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন করেছেন। তিনি এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর কাছে আকুতি জানিয়েছেন।

গত বৃহস্পতিবার রংপুর থেকে ঢাকায় আসার সময় তিন সঙ্গীসহ নিখোঁজ হন আদনান। অন্যরা হলেন আব্দুল মুহিত, মোহাম্মদ ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দীন ফয়েজ।

পুলিশের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা আদনানের ব্যাপারে কোনো তথ্য দিতে পারেননি। রংপুরে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হলেও ঢাকার পুলিশও খোঁজখবর নিচ্ছে বলে জানায়।

গতকাল গাজীপুরের সফিপুরে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ব্যাটালিয়ন আনসারদের ছয় মাসের মৌলিক প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্ব্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা আদনান নিখোঁজের বিষয়টি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর নজরে রয়েছে। তাঁর নিখোঁজের রহস্য উদঘাটন করা হবে। ত্ব-হা কোথায় কী অবস্থায় আছেন, তা বের করা হবে। যারাই আইন ভঙ্গ করছে, তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

গতকাল দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে আদনানের দ্বিতীয় স্ত্রী সাবিকুন নাহার সারা বলেন, ‘যদি সত্যিকার অর্থে তিনি কোনো অপরাধে যুক্ত থাকেন তাহলে রাষ্ট্রীয় আইনে তাঁর বিচার হোক। তিনি কোনো দলের সঙ্গে যুক্ত নন। চারজন মানুষকে গাড়িসহ নিয়ে যাওয়া কোনো প্রাইভেট (ব্যক্তিগত) কাজ নয়।’ নিখোঁজ হওয়ার আগে স্বামীর সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, রংপুর থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হওয়ার পথে বিকেল ৪টার দিকে তাঁর সঙ্গে ফোনে কথা হয়। দুটি মোটরসাইকেল তাঁদের অনুসরণ করছিল। তিনি (ত্ব-হা) বলছিলেন, ‘দোয়া করো যেন কিছু না হয়।’ এর ২০ থেকে ২৪ মিনিট পর ফোন করে জানান বাইকগুলো চলে গেছে।

সাবিকুন নাহার জানান, ওই দিন আদনানের সঙ্গে তাঁর একাধিকবার কথা হয়েছে। একাধিকবার তাঁকে লোকেশনও পাঠিয়েছিলেন তাঁর স্বামী। রাত ২টার দিকে সর্বশেষ তিনি আদনানকে ফোন করেন, কিন্তু ঘুমানোর কারণে তিনি ফোন ধরতে পারেননি। পরে রাত ২টা ৩৭ মিনিটে একটা ম্যাপ শেয়ার করেছিলেন। তাঁর ম্যাপে দেখাচ্ছিল বাসায় পৌঁছতে ১৮ মিনিট লাগবে। এরপর অপেক্ষা করতে করতে রাত ৩টার দিকেও যখন বাসায় পৌঁছলেন না, তখন আবার ফোন করেন। কিন্তু তখন থেকেই আদনানের মোবাইল ফোন বন্ধ পান।

সাবিকুন নাহার বলেন, গত ছয় দিন তিনি স্থানীয় থানা থেকে শুরু করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, পুলিশ সদর দপ্তর, র‌্যাব সদর দপ্তরসহ সব জায়গায়ই ঘুরেছেন। কেউ কেউ আশ্বাস দিলেও স্বামীর কোনো খোঁজ দেননি।



সাতদিনের সেরা