kalerkantho

শনিবার । ১০ আশ্বিন ১৪২৮। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৭ সফর ১৪৪৩

হবিগঞ্জে জালিয়াতির মাধ্যমে মাদক কারবারির জামিন

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৭ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হবিগঞ্জে আদালতে জালিয়াতির মাধ্যমে দুই মাদক কারবারির জামিন করানোর চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার হোতা অ্যাডভোকেট কুতুব উদ্দিন জুয়েলের সনদ বাতিলের সুপারিশ করেছেন অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ এস এম নাসিম রেজা। একই সঙ্গে প্রতারণার মাধ্যমে জামিন নেওয়া দুই মাদক কারবারির জামিন বাতিলের নির্দেশ দিয়েছেন। জেলা ও দায়রা জজ আদালতের কর্মচারী আবেদ আলীকে ওই দপ্তর থেকে সরানোর সুপারিশও করা হয়েছে। গত ১০ জুন এই সুপারিশ করা হলেও গতকাল বুধবার দুপুরে আদালতপাড়ায় বিষয়টি প্রকাশ হলে সর্বত্র চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। ২৭ মে তথ্য জালিয়াতি করে আদালতকে ভুল বুঝিয়ে দুই মাদক কারবারিকে জামিনে মুক্ত করেন জুয়েল।

আদালত সূত্রে জানা যায়, গত ৮ এপ্রিল মাধবপুর উপজেলার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের জগদীশপুর মুক্তিযোদ্ধা চত্বর এলাকা থেকে ৫০ বোতল ফেনসিডিলসহ দুই মাদক কারবারিকে আটক করে পুলিশ। আটক নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁর গোয়ালদী গ্রামের হাবিবুর রহমান ভূইয়ার ছেলে মামুন ভূইয়া (৩৭) ও নরসিংদীর মাধবদীর মৃত নুর হোসেনের ছেলে নবীর হোসেনের (৩২) বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা হয়। এরপর আদালতের মাধ্যমে তাঁদের কারাগারে পাঠানো হয়। পরে তাঁদের আইনজীবী হিসেবে অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান বিভিন্ন সময়ে আদালতে জামিন চান। কিন্তু ২৩ মে আসামিদের স্বজনরা মিজানুরের কাছ থেকে মামলাটি নিয়ে আইনজীবী জুয়েলের সঙ্গে চুক্তি করেন দ্রুত জামিন করানোর শর্তে। পরে তথ্য জালিয়াতির মাধ্যমে হবিগঞ্জের ভারপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজ নাসিম রেজার আদালত থেকে ২৭ মে দুই আসামির জামিন হয়। দায়রা জজ আদালতে জামিনের আবেদনে বলা হয়, আসামিরা ৯ ফেব্রুয়ারি থেকে জেলহাজতে আছেন। অথচ ওই তারিখের অনেক পরে ঘটনাটি ঘটে। আবার দায়রা জজ আদালতে নিম্ন আদালতের ১২ মের আদেশের বিপরীতে জামিন চাইলেও ওই দিন নিম্ন আদালতে জামিন চাওয়া হয়েছিল একজনের। কিন্তু জালিয়াতির মাধ্যমে দুজনের জামিন করেন জুয়েল। পরে বিষয়টি আদালতের নজরে এলে ভারপ্রাপ্ত দায়রা জজ ২ জুন এক আদেশে নবীরের জামিন বাতিল করেন।



সাতদিনের সেরা