kalerkantho

শনিবার । ১০ আশ্বিন ১৪২৮। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৭ সফর ১৪৪৩

বৃষ্টিস্নাত সকালে বর্ষাবন্দনা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রকৃতির নিয়মেই এলো বর্ষা। শুধু ক্যালেন্ডারে নয়, গতকাল মঙ্গলবার আষাঢ়ের প্রথম দিনের প্রকৃতিই জানান দিল বাংলাদেশের দ্বিতীয় এই ঋতুর আগমনের। সকাল থেকেই ঢাকার আকাশ ছিল গম্ভীর। ঝুমঝুম বৃষ্টিও হলো একপশলা। এরপর সারা দিন কখনো ঝিরঝির বৃষ্টি, কখনো আকাশে মেঘের ঘনঘটা, কখনো এক ফাঁকে সোনাঝরা রোদ।

বৃষ্টিস্নাত আষাঢ়ের প্রথম দিনের সকালে ছিল বর্ষাবন্দনার আয়োজন। করোনাকালীন পরিস্থিতিতে ছোট পরিসরে পুরান ঢাকার গেণ্ডারিয়ার সীমান্ত গ্রন্থাগার প্রাঙ্গণে বর্ষাবন্দনার আয়োজন করে বর্ষা উৎসব উদযাপন পরিষদ।

সকাল সাড়ে ৭টায় প্রবীণ গিটারশিল্পী হাসানুর রহমান বাচ্চুর গিটারের সুরে সূচনা হয় উৎসবের। ঝুমঝুম বৃষ্টির মধ্যেই কথা, কবিতা, গান আর নৃত্যের তালে-ছন্দে চলে বর্ষার আবাহন। মহাদেব ঘোষের কণ্ঠে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘মোর ভাবনারে কী হাওয়ায় মাতালো, দোলে মন দোলে অকারণ হরষে’ গানটি দর্শক-শ্রোতাদের হৃদয়ে জাগিয়ে তোলে আবেগের অনুরণন।

শিল্পী বিজন চন্দ্র মিস্ত্রি শোনান নজরুলের ‘বরষা ঐ এলো বরষা’ গানটি। কানন বালা সরকার, নবনীতা জাহিদ চৌধুরী ও শ্রাবণী গুহ রায়ও শোনান বর্ষাবন্দনার নানা গান।

দলীয় সংগীত ও নৃত্য পরিবেশন করেন বুলবুল ললিতকলা একাডেমি, স্পন্দন ও সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠীর শিল্পীরা। কবিতার শিল্পিত উচ্চারণে একক আবৃত্তি পরিবেশন করেন বেলায়েত হোসেন ও আহসান উল্লাহ তমাল।



সাতদিনের সেরা