kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৩ আশ্বিন ১৪২৮। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১। ২০ সফর ১৪৪৩

গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিলের লিডারশিপ পুরস্কার পেল বিজিএমইএ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশের তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ বিশ্বের প্রথম বাণিজ্যিক সংগঠন হিসেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিলের (ইউএসজিবিসি) লিডারশিপ পুরস্কার পেয়েছে। পরিবেশবান্ধব পোশাক কারখানা স্থাপনের জন্য তাদের এই স্বীকৃতি দেওয়া হয়।

গতকাল শনিবার রাজধানীর গুলশানে বিজিএমইএর কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। এ সময় সংগঠনের পক্ষে বলা হয়, লিডারশিপ ইন এনার্জি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল ডিজাইন—লিড সনদ পাওয়া বিশ্বের সেরা ১০টি সবুজ কারখানার মধ্যে বাংলাদেশের ৯টি। এ ছাড়া বিশ্বের সেরা ১০০ কারখানার মধ্যে বাংলাদেশের আছে ৩৯টি। বিজিএমইএ জানায়, দেশের আরো ৫০০ কারখানা লিড সনদ পাওয়ার প্রক্রিয়ায় রয়েছে।

অনুষ্ঠানে ইউএসজিবিসির প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের পরিচালক পি গোপাল কৃষ্ণ বলেন, মানবসৃষ্ট কার্বন নিঃসরণের ১০ শতাংশই হয় ফ্যাশন খাতে। তাই এই শিল্পকে আরো দায়িত্বশীল হতে হবে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অনুকরণীয় ভূমিকা রাখছে। পরিবেশবান্ধব কারখানা স্থাপনে নেতার মতো নেতৃত্ব দিচ্ছে বাংলাদেশ।

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, বাংলাদেশ পরিবেশবান্ধব উৎপাদন নিশ্চিত করলেও ক্রেতারা দামের বেলায় কৃপণতা করছেন। ক্রেতাদের ক্রয়াদেশ এবং দামে অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত। তিনি আরো বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে পোশাক কারখানায় ৩০ শতাংশ কার্বন নিঃসরণ কমাবে।

ফারুক হাসান জানান, এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের ১৪৩টি কারখানা ইউএসজিবিসি থেকে লিড সার্টিফিকেট অর্জন করেছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে ৪১টি প্লাটিনাম কারখানা।

অনুষ্ঠানে বিজিএমইএ সভাপতি আরো বলেন, বিশ্বমানের পোশাক তৈরিতে বাংলাদেশের পেশাদারিত্ব ক্রেতাদের কাছে সমাদৃত। ফলে গত ১০ বছরে পোশাক রপ্তানি দ্বিগুণ হয়েছে। ২০১৯ সালে পোশাক রপ্তানি হয়েছে তিন হাজার ৩০০ কোটি ডলারের, যা ২০১১ সালে ছিল এক হাজার ৪৬০ কোটি ডলারের।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিজিএমইএ সহসভাপতি মো. শাহিদউল্লাহ আজিম, পরিচালক শিরিন সালাম ঐশী, মো. মহিউদ্দিন রুবেল প্রমুখ।