kalerkantho

রবিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৮। ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৮ সফর ১৪৪৩

খুমেকে চালু হচ্ছে করোনার আরেক ইউনিট

১০০ শয্যার এ ইউনিটে প্রেষণে পাঠানো হচ্ছে ১০ চিকিৎসক ও ৪০ নার্সকে

খুলনা অফিস   

১৩ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রোগীর চাপ সামাল দিতে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে অচিরেই চালু হচ্ছে ‘করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে’র দ্বিতীয় ইউনিট। সপ্তাহখানেকের মধ্যে পুরোদমে ইউনিটটি চালু হবে। ফলে খুলনাসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের করোনা চিকিৎসা স্বল্পতার দীর্ঘদিনের কষ্ট লাঘব হবে। এ লক্ষ্যে বিভিন্ন জেলা থেকে প্রেষণে ১০ জন চিকিৎসক ও ৪০ জন নার্স নিয়োগ চূড়ান্ত হয়েছে। খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পুরনো গ্যাস্ট্রোলজি বিভাগে এই ইউনিট চালু হবে।

খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক রাশিদা সুলতানা জানিয়েছেন, করোনা রোগীর চিকিৎসাসেবা নিশ্চিতে বিভিন্ন জেলা-উপজেলা থেকে ১০ জন চিকিৎসক ও ৪০ জন নার্সকে করোনার দ্বিতীয় ইউনিটে নিয়ে আসা হয়েছে। আজ রবিবার তাঁরা কর্মস্থলে যোগ দেবেন। শিগগিরই দ্বিতীয় ইউনিট চালুর চেষ্টা করা হচ্ছে।

করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের মুখপাত্র ডা. সুহাষ রঞ্জন হালদার বলেন, ‘আমরা বেশ কিছুদিন ধরে দ্বিতীয় ইউনিট চালুর কথা বলে আসছিলাম। দ্বিতীয় ইউনিটের জন্য ইতিমধ্যে চিকিৎসক ও নার্সদের প্রেষণে এখানে নিয়ে আসার অনুমতি মিলেছে। লজিস্টিক সপোর্টের কাজ চলছে। অন্যান্য কর্মকর্তা ও কর্মচারী নিয়োগ হলে এক সপ্তাহের মধ্যে দ্বিতীয় ইউনিট চালু করা যাবে।’

নতুন আসা চিকিৎসক তালিকায় রয়েছেন ঝিনাইদহের শৈলকুপার উমেদপুর ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রের সহকারী সার্জন ডা. মাহবুব আলম, কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ইনডোর মেডিক্যাল অফিসার ডা. ইসরাত জেরিন, নলডাঙ্গা ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রের সহকারী সার্জন ডা. মো. তালাত তাসমিমা, পদ্মকর ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রের সহকারী সার্জন ডা. মো. আব্দুল্লাহ হিল মারুফ, নড়াইল ভদ্রবিলা ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রের সহকারী সার্জন ডা. শামস ইবনে করিম, কালিয়া পহরডাঙ্গা ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রের সহকারী সার্জন ডা. রোশিনী খানম, কুষ্টিয়া সদরের জগতি ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্যকেন্দ্র মেডিক্যাল অফিসার ডা. ইনজামুল হক, মেহেরপুরের গাংনীর ষোলটাকা ইউনিয়ন পরিষদ উপস্বাস্থ্যকেন্দ্র সহকারী সার্জন ডা. মো. হামিদুল ইসলাম, রংপুর সিভিল সার্জন দপ্তরের ডা. নাহিদা ইয়াসমিন মিতু ও মাগুরা সিভিল সার্জন দপ্তরের ডা. সাগর সৈকত বিশ্বাস। অন্যদিকে খুলনার বক্ষব্যাধি হাসপাতাল থেকে ৪০ জন নার্সকে নিয়ে আসা হচ্ছে করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের দ্বিতীয় ইউনিটে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় (শুক্র-শনিবার) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে একজন করোনা আক্রান্ত হয়ে এবং চারজন উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণ করেছে। এ ছাড়া হাসপাতালে ১৩১ জন রোগী ভর্তি রয়েছে। যার মধ্যে রেড জোনে ৬৫ জন, ইয়েলো জোনে ২১ জন, এইচডিইউতে ৩২ জন এবং আইসিইউতে ১৩ জন চিকিৎসাধীন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ভর্তি হয়েছে ২৭ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৩৮ জন।

খুলনা সিভিল সার্জন দপ্তর জানায়, শুক্রবার থেকে শনিবার পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা জেলা ও মহানগরীতে ৩৩৩ জনের নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে ১১৬ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়; যা মোট নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার ৩৪ শতাংশ।



সাতদিনের সেরা