kalerkantho

শনিবার । ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩১ জুলাই ২০২১। ২০ জিলহজ ১৪৪২

ক্ষুদ্রজাতির নারীকে ধর্ষণের চেষ্টা গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে

পৃথক ঘটনায় দুই কিশোর গ্রেপ্তার

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৩ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টাঙ্গাইলের সখীপুরে ক্ষুদ্রজাতির এক নারীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। গুরুতর আহত ওই নারী টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। লক্ষ্মীপুরে ধর্ষণ মামলা তুলে নিতে ভুক্তভোগীকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে আসামিপক্ষের বিরুদ্ধে। পিরোজপুরের স্বরূপকাঠিতে এক কিশোরীকে ধর্ষণ এবং আরেক কিশোরীকে অপহরণের অভিযোগে পৃথক দুটি মামলায় দুই কিশোরকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

সখীপুর উপজেলার হাতিবান্ধা ইউনিয়নের একটি গ্রামে গত বৃহস্পতিবার রাতে ঘটনাটি ঘটে। পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন জানায়, বাজাইল বড়চালা এলাকার টেংগু সরকারের ছেলে দীনা সরকার (৩৪), নারায়ণ চন্দ্র সরকারের ছেলে মন্টু সরকার (৩২) এবং ময়নাল মিয়ার ছেলে সবদুল মিয়া (৩৮) মদ পান করে ওই নারীর (৪২) বাড়িতে যান। পরে তাঁকে বাইরে ডেকে এনে ধর্ষণের চেষ্টা এবং গুরুতর আঘাত করেন। তিনি চিৎকার দিলে অভিযুক্তরা পালিয়ে যান। শুক্রবার সকালে তাঁকে সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ফরিদ হোসেন বলেন, ওই নারীর শরীরে কামড় ও আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধর্ষণচেষ্টার কথা শোনার পর তাঁকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ভুক্তভোগীর দেবর জানান, এ ঘটনায় আজ রবিবার মামলা করা হবে। সখীপুর থানার ওসি এ কে সাইদুল হক ভূঁইয়া বলেন, ‘ঘটনা শুনেই পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। লিখিত অভিযোগ পেলে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

লক্ষ্মীপুরে গতকাল শনিবার দুপুরে ভুক্তভোগী নারী (২৮) সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগটি করেন। ৯ জুন চন্দ্রগঞ্জ থানায় ধর্ষণ মামলার পর গ্রেপ্তার মাদরাসা পরিচালক শাহ মো. মনির হোসেন জেলা কারাগারে আছেন। আসামি মনির সদর উপজেলার যাদৈয়া এলাকার মাওলানা আহম্মদ উল্যাহ কমপ্লেক্স ও এতিমখানার পরিচালক। মামলা সূত্রে জানা যায়, ওই নারী তাঁর মেয়েকে ৮ জুন এতিমখানাটিতে ভর্তি করাতে মনির হোসেনের কাছে যান। তখন প্রতিষ্ঠানে অন্য কেউ না থাকার সুযোগে মনির তাঁকে নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করেন। স্বরূপকাঠিতে দুই কিশোরকে শুক্রবার রাতে গ্রেপ্তার করা হয়। উপজেলার আকলম গ্রামে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রামটির এক কিশোরকে (১৭) এবং কামারকাঠি গ্রামের এক কিশোরীকে অপহরণের মামলায় জগৎপট্টি গ্রামের এক কিশোরকে (১৬) গ্রেপ্তার করা হয়।