kalerkantho

শুক্রবার । ২ আশ্বিন ১৪২৮। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ৯ সফর ১৪৪৩

চট্টগ্রামে কবরস্থান নিয়ে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ ৪

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৫

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চট্টগ্রাম নগরীতে কবরস্থানের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ১৩ জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে চারজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে। গতকাল শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে নগরীর বাকলিয়া থানার পূর্ব বাকলিয়া আবদুল লতিফ হাটখোলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। অন্যদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জুমার নামাজে দেওয়া বয়ানকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ১৫ জন আহত হয়েছেন। এ নিয়ে আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর—

আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম জানান, বাকলিয়ায় গুলিবিদ্ধরা হচ্ছে মো. মাসুদ (২৮), আবদুল্লাহ কাইছার (৩৯), মো. মুরাদ (২৫) ও মো. ফয়সাল (২৮)। এ ছাড়া আহত হয়েছেন মো. জাহাঙ্গীর (৪২), মো. তৈয়ব (২৮), জয় (১৪), শহিদুল্লাহ (৩৮), রিয়াজ উদ্দিন (২০), মো. আসিফ (২৪), মান্নান (৩৯), শাহাব উদ্দিন শাওন (২৫) ও মো. সামাদ (২২)।

বাকলিয়া থানার ওসি মুহাম্মদ রুহুল আমীন জানান, বাকলিয়ার আব্দুল লতিফ হাটখোলা এলাকায় ‘বড় মৌলভী বাড়ি কবরস্থান’-এ সাইনবোর্ড লাগানোকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। ‘বড় মৌলভী বাড়ি’র লোকজনের দাবি, এটা তাদের পূর্ব পুরুষের দেওয়া নিজস্ব কবরস্থান। সকালে ওই বাড়ির লোকজন এবং প্রতিবেশীরা মিলে সেখানে সাইনবোর্ড লাগাতে যায়। তখন পাশাপাশি ইয়াকুব আলীর বাড়ি ও এলাকার লোকজন গিয়ে তাদের বাধা দেয়। তাদের দাবি, এটা ১০০ বছর ধরে স্থানীয়দের সম্মিলিত সামাজিক সংগঠনের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে, এটা কারও পৈতৃক সম্পত্তি নয়।

সাইনবোর্ড লাগাতে বাধা দেওয়াকে কেন্দ্র করে প্রথমে হাতাহাতি ও পরে সংঘর্ষ শুরু হয়। উভয় পক্ষে গোলাগুলি হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে বলে জানিয়েছেন ওসি রুহুল আমীন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর উপজেলার সুহিলপুর ইউনিয়নের গোপীনাথপুর গ্রামে শুক্রবার দুপুরে জুমার নামাজ আদায়ের পর মসজিদ থেকে বের হয়ে দুই দল গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। নামাজে দেওয়া বয়ানকে কেন্দ্র করে তর্কাতর্কির জের ধরে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আহত মোশারফ হোসেন (৪০), খায়ের মিয়া (৩৫), রশিদ মিয়া (২৫), সিরাজ মিয়া (৬০), রহিজ মিয়া (৬৫), বাহার মিয়া (৫৫), রশিদ মিয়া (৩৫), জাবের হোসেন (৩৫), শিপন (৪০), কামাল মিয়া (৫০), এমরান (৩০), হাবিবুল্লাহ (২৫), মরিয়ম বেগম (৩০) ও হোসনে আরা বেগম (৬৫) ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।



সাতদিনের সেরা