kalerkantho

মঙ্গলবার । ১০ কার্তিক ১৪২৮। ২৬ অক্টোবর ২০২১। ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বেলাবতে গণপিটুনিতে নিহত ২

পরিবারের দাবি ডেকে নিয়ে হত্যা

নরসিংদী প্রতিনিধি   

১০ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নরসিংদীর বেলাবর দড়িকান্দি-বড়চর সড়কে গত মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে গণপিটুনিতে সন্দেহভাজন দুই ডাকাত নিহত হন। নিহতরা হলেন রায়পুরা উপজেলার লোচনপুর গ্রামের আতর মিয়ার ছেলে জুয়েল মিয়া (৩০) ও একই গ্রামের শহিদ উল্লাহর ছেলে নাদিম মিয়া (৩০)। তাঁরা দুজন সম্পর্কে চাচাতো ভাই। এর মধ্যে নিহত নাদিম মিয়ার পরিবারের দাবি, পরিকল্পিতভাবে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে তাকে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় নাদিম মিয়ার ভাই সেন্টু মিয়া বাদী হয়ে গতকাল কয়েক শ এলাকাবাসীর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের বেলাব উপজেলার দড়িকান্দি বাসস্ট্যান্ড থেকে রায়পুরা উপজেলার সীমান্তবর্তী বড়চর সড়কে প্রায়ই ডাকাতি ও ছিনতাই হয়। গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশাযোগে তিন-চারজন লোক ওই সড়কে আসেন। এ সময় তাঁদের অটোরিকশায় দেশি অস্ত্র দেখতে পায় স্থানীয়রা। পরে তাদের চিত্কারে দড়িকান্দি ও বড়চর এলাকার লোকজন জড়ো হয়ে দুই দিক থেকে ডাকাত সন্দেহে ওই অটোরিকশাটি অবরুদ্ধ করার চেষ্টা করে। এ সময় অটোরিকশাটি ফেলে সন্দেহভাজন ব্যক্তিরা পালানোর চেষ্টা করলে স্থানীয়রা দুজনকে আটক করে গণপিটুনি দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই তাঁরা মারা যান। অন্যরা পালিয়ে যান। পরে উত্তেজিত জনতা অটোরিকশাটি পুড়িয়ে দেয়। পুলিশ জানায়, নিহত দুজনের মধ্যে জুয়েলের বিরুদ্ধে রায়পুরা থানায় মাদক মামলা রয়েছে।

নিহত জুয়েলের বোন পরিষ্কার বেগম জানান, ফোন করে ডেকে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে। তবে কে বা কারা কী কারণে এ হত্যার ঘটনা ঘটিয়েছে তা জানাতে রাজি হননি তিনি।

বেলাব থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাফায়েত হোসেন পলাশ বলেন, নিহত জুয়েলের বিরুদ্ধে রায়পুরা থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে তিনটি মামলা রয়েছে। নিহতদের লাশ নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। নিহত নাদিম মিয়ার ভাই সেন্টু মিয়া বাদী হয়ে মামলা করেছেন।



সাতদিনের সেরা