kalerkantho

রবিবার । ৮ কার্তিক ১৪২৮। ২৪ অক্টোবর ২০২১। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সার পরিবহনের নতুন ব্যবস্থা নিয়ে আপত্তি

‘যথাসময়ে কৃষকদের হাতে সার পৌঁছানো কঠিন হয়ে পড়বে।’

মুস্তফা নঈম, চট্টগ্রাম   

৯ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সার পরিবহনের নতুন ব্যবস্থা নিয়ে আপত্তি

বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন (বিসিআইসি) উত্পাদিত টিএসটি ও ডিএপি সার কারখানা থেকে ডিলারের কাছে পৌঁছাতে ঠিকাদার নিয়োগের সিদ্ধান্তে অনেকেই ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। তাঁরা বলছেন, এর ফলে যথাসময়ে কৃষকদের হাতে সার পৌঁছানো কঠিন হয়ে পড়বে।

অন্যদিকে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, যথাসময়ে এবং মান ঠিক রেখে ডিলারদের হাতে সার পৌঁছাতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 

সম্প্রতি কৃষি মন্ত্রণালয়ের এক সভায় পরিবহন ঠিকাদার নিয়োগে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য টিএসপি ও ডিএপির ব্যবস্থাপনা পরিচালককে চিঠি দেওয়া হয়। বিসিআাাইসি পরিচালক (বাণিজ্যিক) আমিন উল আহসান গত ৩০ মে চট্টগ্রাম বিভাগের আট জেলা বাদে ৫৬ জেলায় পরিবহন ঠিকাদার নিয়োগের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য চিঠি দেন। এর আগে যে ব্যবস্থা ছিল তাতে বিভিন্ন জেলার ডিলাররা চট্টগ্রামে অবস্থিত টিএসপি ও ডিএপি কারখানা থেকে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সার নিয়ে যেতেন।

বাংলাদেশ ফার্টিলাইজার অ্যাসোসিয়েশনের (বিএফএ) পরিচালক আবদুল হান্নান শেখ জানান, টিএসপি ও ডিএপি সার যদি প্রথমে নিয়ে বিভিন্ন জেলার বাফার গুদামে রাখা হয় এবং এরপর সরবরাহ করা হয়, তাহলে অনেক সমস্যা তৈরি হতে পারে। সার ভিজে যেতে পারে, বস্তা ছিঁড়ে যেতে পারে। এমনকি ওজনে কম দেওয়ার আশঙ্কাও আছে। তিনি বলেন, ‘বাফার গুদাম থেকে সার সরবরাহ করা হলে ডিলাররা তা নেবেন না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।’

এ ব্যাপারে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সার ব্যবস্থাপনা ও উপকরণ শাখা) মো. মাহবুবুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘দূরবর্তী জেলাগুলোতে ডিলারদের কাছে দ্রুততম সময়ে সার পৌঁছাতে অঞ্চলভিক্তিক বাফার গুদামব্যবস্থা চালুর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিশেষ করে চট্টগ্রামের টিএসপি ও ডিএপি কারখানা থেকে ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, বাগেরহাট কিংবা বরিশাল অঞ্চলে সার পৌঁছানো খুবই দুরূহ ও কঠিন।’

বাফার গুদামে সার রাখা হলে গুণগত মান কমে যাবে কি না কিংবা বারবার পরিবহনে ওঠানামা করানোয় সার নষ্ট হবে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে এই অতিরিক্ত সচিব বলেন, ‘আপনার বিষয়টি নোট করলাম। আমরা বিষয়টি নিয়ে পরবর্তী সভায় আলোচনা করব। এমনটা ঘটার আশঙ্কা থাকলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’



সাতদিনের সেরা