kalerkantho

শুক্রবার । ২ আশ্বিন ১৪২৮। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ৯ সফর ১৪৪৩

আধিপত্যের জন্য নৃশংসতার ছক ‘ডি কম্পানির’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রাজধানীর উপকণ্ঠ টঙ্গীর ভয়ংকর কিশোর গ্যাং ‘ডেয়ারিং কম্পানির’ (ডি কম্পানি) প্রধান পৃষ্ঠপোষক রাজিব চৌধুরী বাপ্পী ওরফে লন্ডন বাপ্পীসহ ১২ জনকে গ্রেপ্তার করেছেন র‌্যাব-১ সদস্যরা। গত শনিবার রাতে রাজধানীর উত্তরা ও টঙ্গী এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের কাছে দুটি বিদেশি পিস্তল, দুটি চাপাতি, দুটি রামদা, তিনটি লোহার রড ও একটি ছুরি পাওয়া গেছে।

এই গ্যাংয়ের গ্রেপ্তারকৃত অন্য সদস্যরা হলো তানভীর হোসেন ওরফে ব্যাটারি তানভীর, পারভেজ ওরফে ছোট পারভেজ, তুহিন ওরফে তারকাটা তুহিন, সাইফুর ইসলাম শাওন, রবিউল হাসান, শাকিল ওরফে বাঘা শাকিল, ইয়াসিন আরাফাত ওরফে বিস্কুট ইয়াছিন, মাহফুজুর রহমান ফাহিম ও ইয়াছিন মিয়া।

র‌্যাব কর্মকর্তারা জানান, সম্প্রতি টঙ্গীর আরিচপুর এলাকায় দুই দফা হামলা চালায় ‘ডি কম্পানির’ সদস্যরা। এই গ্যাংয়ের উদ্দেশ্য ছিল হামলা, ভাঙচুর, মারামারি ও হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে পুরো টঙ্গী নিয়ন্ত্রণ করা। তাদের গ্রুপে দুই শতাধিক সদস্য আছে।

গতকাল বিকেলে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন ও র‌্যাব-১-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. আব্দুল মুত্তাকিম অভিযানের ব্যাপারে বিস্তারিত জানান। তাঁরা বলেন, এই গ্যাংয়ের অন্যতম সদস্য মইন আহমেদ নীরব ওরফে ডন নীরব ও রাজিব আহমেদ নীরব ওরফে টম নীরব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দুই শতাধিক কিশোরকে সক্রিয় রাখত। গত ১ জুন রাত সাড়ে ৯টার দিকে ‘ডি কম্পানির’ সদস্যরা টঙ্গীর পূর্ব থানাধীন আরিচপুর এলাকার ভূইয়াপাড়া জামে মসজিদের সামনে জনৈক তুহিন আহমেদ এবং তুষার আহমেদকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। গ্রেপ্তারকৃতরা মাদক সেবন, স্কুল-কলেজে র‌্যাগিং, ইভ টিজিং, ছিনতাই, চাঁদাবাজি, ডাকাতি ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অশ্লীল ভিডিও শেয়ারসহ নানা অবৈধ কাজে জড়িত ছিল।

র‌্যাব সূত্র জানায়, গ্যাংয়ের প্রধান রাজিব চৌধুরী বাপ্পী এর আগেও অস্ত্রসহ র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছিল। এ ছাড়া একটি অপহরণ মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। সম্প্রতি জামিনে বেরিয়ে ফের বিভিন্ন অপরাধে জড়িয়ে পড়ে বাপ্পী। তার ভাই পাপ্পু ওরফে লন্ডন পাপ্পু একসময় লন্ডনে ছিল। মাদক কারবার, মারামারি, হত্যাচেষ্টা ও বিভিন্ন অপরাধে সে এখন কারাগারে। এই কিশোর গ্যাং দুটি হত্যাকাণ্ডের ছকও করেছিল।      

র‌্যাব জানায়, এই গ্যাংয়ে টঙ্গীর বনমালা রোডের জুয়েল মাহমুদ পারভেজ, টঙ্গী বাজারের সাগর, জিল্লুর শিহাব, আমান, ছোট রিমন, রিফাত, জয়, মিম, মইন ও জিল্লুর সম্পৃক্ত। আরেকটি গ্যাংয়ে টঙ্গীর মরকুন গোদারাঘাট এলাকার আসাদ শিকদারের নেতৃত্বে রয়েছে রাব্বি, রিফাত, রাকিব, হাবিবসহ অর্ধশতাধিক কিশোর।



সাতদিনের সেরা