kalerkantho

রবিবার । ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৫ ডিসেম্বর ২০২১। ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩

করোনায় অকার্যকর ‘মিনি পার্লামেন্ট’

সরকারের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহির স্বার্থে সংসদীয় কমিটিগুলো কার্যকর করার তাগিদ বিশেষজ্ঞদের

নিখিল ভদ্র   

২৭ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



করোনায় অকার্যকর ‘মিনি পার্লামেন্ট’

একাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনের ১০ দিনের মধ্যে ৫০টি সংসদীয় কমিটি গঠনের মধ্যে দিয়ে রেকর্ড সৃষ্টি করেছিলেন সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর নিয়ম মেনে কমিটিগুলোর বৈঠক শুরু হয়, কিন্তু দিন যত গড়িয়েছে, কমিটিগুলো তত গতি হারিয়েছে। গত বছর করোনাভাইরাসের প্রথম ঢেউয়ে স্থবির হতে শুরু করে, আর এ বছর মহামারির দ্বিতীয় ধাক্কায় প্রায় অকার্যকর হয়ে আছে ‘মিনি পার্লামেন্ট’ হিসেবে খ্যাত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিগুলো।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সংসদীয় গণতন্ত্রের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ সরকারের জবাবদিহি নিশ্চিত করা। সংসদীয় কমিটিগুলোর ভূমিকা এ ক্ষেত্রে অপরিহার্য। কমিটিগুলোর কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ার অর্থ জবাবদিহি থেকেও দূরে সরে যাওয়া। তাই কমিটিগুলো কার্যকর জোর তাগিদ দেন তাঁরা।

সংবিধানের ৭৬ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, সংসদ নেতার প্রস্তাব অনুযায়ী সংসদের অনুমোদন সাপেক্ষে স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়। চলতি সংসদে ৩৯টি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত এবং অন্যান্য বিষয়ে ১১টি কমিটি রয়েছে। মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কমিটিগুলোর মাসে অন্তত একটি বৈঠক করা কথা।

কার্যপ্রণালী বিধি অনুযায়ী, কমিটির প্রধান কাজ এর আওতাধীন মন্ত্রণালয়ের কাজ পর্যালোচনা, অনিয়ম ও গুরুতর অভিযোগ তদন্ত করা। এ ছাড়া বিল পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে মন্ত্রণালয়কে পরামর্শ দেওয়া বা সুপারিশ করাও সংসদীয় কমিটির কাজ।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, করোনাকালে সংসদীয় কমিটিগুলো ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। অথচ এই সময়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিয়ম অনুযায়ী সংসদের পাঁচটি অধিবেশনসহ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বিশেষ অধিবেশন বসেছে। গুরুত্বপূর্ণ আইনও পাস হয়েছে। অধিবেশন চলাকালে আইন প্রণয়নের প্রয়োজনে কিছু কমিটির বৈঠক চললেও বেশির ভাগেরই বৈঠক হয়নি। করোনাকালে গত বছর টানা সাত মাস ও চলতি বছরে তিন মাস বৈঠক বন্ধ ছিল। অথচ এ সময়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কমিটির গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা প্রত্যাশিত থাকলেও তা দেখা যায়নি।

সংশ্লিষ্টরা আরো বলেন, করোনাসংকটের পাশাপাশি ঘূর্ণিঝড় আম্ফান ও দীর্ঘমেয়াদে বন্যা এলেও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটিও নিশ্চুপ ছিল। পেঁয়াজ, আলু, চালসহ নিত্যপণ্যের দাম অস্বাভাবিক বাড়লেও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির তৎপরতা দেখা যায়নি। আর্থিক খাতে চরম অব্যবস্থাপনায় ভূমিকা দেখা যায়নি অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির।

সংসদ সচিবালয়ের তথ্যানুযায়ী, একমাত্র নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটি বিধি অনুযায়ী বৈঠকের সংখ্যা পূর্ণ করেছে। এই কমিটি গত আড়াই বছরে সর্বোচ্চ ৩০টি বৈঠক করেছে। এরপর মহিলা ও শিশু বিষয়ক কমিটি ২২টি এবং অর্থ, জনপ্রশাসন এবং স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় কমিটি সর্বনিম্ন ছয়টি করে বৈঠক করেছে। আর মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কমিটিগুলোর বাইরে চলতি সংসদে সর্বোচ্চ ৪৩টি বৈঠক করেছে সাংবিধানিক কমিটি সরকারি হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি। সরকারি প্রতিষ্ঠান কমিটি সর্বনিম্ন ১০টি বৈঠক করেছে। প্রতিটি অধিবেশনের প্রথম দিনে সংসদের কার্যোপদেষ্টা কমিটির বৈঠক হলেও করোনাকালে তা বন্ধ আছে।

জানতে চাইলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি মুহম্মদ ফারুক খান গত মঙ্গলবার বলেন, কার্যপ্রণালী বিধিতে প্রতি মাসে একটি করে বৈঠক অনুষ্ঠানের কথা বলা হয়েছে। সেই অনুযায়ী পররাষ্ট্র কমিটি নিয়মিত বৈঠক করছে।

বিধি অনুযায়ী, প্রতি মাসে বৈঠক করা সম্ভব না হলেও মন্ত্রণালয়ের স্বচ্ছতা-জবাবদিহি নিশ্চিত করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছে বলে মনে করেন কমিটির সভাপতি মো. শামসুল হক টুকু। তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের প্রভাবে সব কার্যক্রমই স্থবির হয়ে পড়ে।

সংসদীয় গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করতে সংসদীয় কমিটিগুলো কার্যকর করা জরুরি বলে মত দিয়ে নাগরিক সংহতির সাধারণ সম্পাদক মো. শরিফুজ্জামান বলেন, সংসদীয় গণতন্ত্রের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ সরকারের জবাবদিহি নিশ্চিত করা। সংসদীয় কমিটিগুলো ‘মিনি পার্লামেন্ট’ হিসেবে কাজ করে। কমিটির বৈঠকে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের অনিয়ম-দুর্নীতি ও জবাবদিহির বিষয়ে আলোচনা হয়। সেখান থেকে প্রয়োজনীয় সুপারিশ ও নির্দেশনা দেওয়া হয়।

আর টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলেন, সরকারি দলের একক আধিপত্যের কারণে সংসদীয় কমিটিগুলো পুরোপুরি কার্যকর নয়। এরপর করোনা পরিস্থিতিতে নতুন সংকট তৈরি হয়েছে। কমিটির বৈঠক না হওয়ায় সরকারের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহির বিষয়টি আড়ালে পড়ে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।



সাতদিনের সেরা