kalerkantho

শনিবার । ১০ আশ্বিন ১৪২৮। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৭ সফর ১৪৪৩

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১

আজ উৎক্ষেপণের তৃতীয় বর্ষপূর্তি

বছরে আয় ১৩০ কোটি টাকা

বিশেষ প্রতিনিধি   

১২ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আজ ১২ মে বাংলাদেশের প্রথম স্যাটেলাইট ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১’-এর মহাকাশে সফল উৎক্ষেপণের তিন বছর পূর্তি। ২০১৮ সালের এই দিনে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টারের লঞ্চ প্যাড থেকে স্যাটেলাইটটির সফল উৎক্ষেপণ সম্পন্ন হয়। এতে বাংলাদেশের খরচ হয় দুই হাজার ৯০২ কোটি টাকা। ‘জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগান লেখা স্যাটেলাইটটি মহাকাশে উৎক্ষেপণের মাধ্যমে স্যাটেলাইট অধিকারী বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে বাংলাদেশ। দিনটি ছিল বাংলাদেশের জন্য উৎসবের। স্যাটেলাইটটির উৎক্ষেপণ দৃশ্য স্পেসএক্স সরাসরি তাদের ওয়েবসাইটে সম্প্রচার করে। রাত জেগে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর পাশাপাশি রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে স্থাপিত বড় পর্দার মাধ্যমে এই ঐতিহাসিক ক্ষণের সাক্ষী হয়েছে দেশের সর্বস্তরের মানুষ। প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরসহ জেলা প্রশাসনগুলোর আয়োজনে এই উৎক্ষেপণ দৃশ্য দেখানো হয়।

‘বঙ্গবন্ধু-১’ স্যাটেলাইটের সফল উৎক্ষেপণের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টেলিভিশন ভাষণে এর শুভ উৎক্ষেপণ ঘোষণা করেন। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার দেশে এই দিবসটি  তেমনভাবে পালন করা হচ্ছে না।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এ বিষয়ে কালের কণ্ঠকে বলেন, প্রথমবারের মতো মহাকাশে নিজস্ব স্যাটেলাইট পাঠানোর দিনটি আমাদের জন্য অত্যন্ত আনন্দের ও গর্বের হলেও আমরা কভিড-১৯ পরিস্থতির কারণে এবার আনুষ্ঠানিকভাবে উদযাপন করতে পারছি না। এই কমিউনিকেশন স্যাটালাইট আমাদের বিদেশনির্ভরতা কমিয়েছে। তবে আমাদের দুর্ভাগ্য, এটার উৎক্ষেপণের পর এর মার্কেটিংয়ের জন্য উপযুক্ত সময়টাতে সারা বিশ্ব মহামারির কবলে পড়ে গেছে।

বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কম্পানি লিমিটেডের (বিএসসিএল) চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ কালের কণ্ঠকে বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১-এর মাধ্যমে বছরে ১৩০ কোটি টাকা আয় হচ্ছে। দেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলো এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে গ্রাহকদের সেবা দিচ্ছে। বাংলাদেশ বেতারও আমাদের অন্যতম গ্রাহক। দেশের দুর্গম দ্বীপ ও চরাঞ্চলে যেখানে সাধারণ টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক নেই, সেখানে এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে নেটওয়ার্ক চালু করা হয়েছে। চরফ্যাশন ও ভাসানচরে এ ব্যবস্থা চালু হয়েছে। ভাসানচরে পুলিশ ড্রোন ক্যামেরার বদলে এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে। এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে অন্য আরো কয়েকটি সেবা চালু হলে আয় আরো বাড়বে। ব্যাংকের এটিএম বুথগুলোর সেবা এর মাধ্যমে শুরু করার প্রস্তুতি চলছে। এতে এটিএম বুথগুলোর সেবা নির্বিঘ্ন ও নিরাপদ হবে।



সাতদিনের সেরা