kalerkantho

সোমবার । ৭ আষাঢ় ১৪২৮। ২১ জুন ২০২১। ৯ জিলকদ ১৪৪২

এক টাকায় দুই টাকায় ঈদ আনন্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১১ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এক টাকায় দুই টাকায় ঈদ আনন্দ

‘হাসি ফুটুক সবখানে, সবার মাঝে’ স্লোগান নিয়ে এক টাকায় এই ঈদ কেনাকাটার আয়োজন করেছে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ ও বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন। ছবি : কালের কণ্ঠ

বড় হলঘরের ভেতরে সারি সারি সাজানো নতুন পোশাক। একদল শিশু সেখানে ঘুরে ঘুরে পোশাক পছন্দ করছে। কেউ জামা পছন্দ করছে, কেউ বা শার্ট। শিশুদের সঙ্গে অভিভাবকরাও আছেন। সাজানো পোশাকগুলো কিনতে শিশু কিংবা তাদের অভিভাবকদের ব্যয় করতে হচ্ছে মাত্র এক টাকা।

ঈদ সামনে রেখে ব্যতিক্রমী এই আয়োজন সাজানো রয়েছে চট্টগ্রাম মহানগরীর বাকলিয়া থানার রাজাখালী রাজবাড়ি কনভেনশন সেন্টারে। ‘হাসি ফুটুক সবখানে, সবার মাঝে’ স্লোগান সামনে রেখে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ ও বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে এক টাকায় এই ঈদ কেনাকাটার আয়োজন করা হয়েছে। সেখানে দরিদ্র পরিবারের শিশুরা মনের খুশিতে ঈদের বাজার করছে।

সবার মাঝে হাসি ফোটানোর লক্ষ্যে তিন দিনব্যাপী এই এক টাকায় ঈদ কেনাকাটা কার্যক্রম গতকাল সোমবার উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবক কিশোর কুমার দাশ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মহানগর পুলিশ কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর বলেন, ঈদুল ফিতর সামনে রেখে সমাজের ছিন্নমূল মানুষের ঈদ আনন্দ বাড়িয়ে দিতে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ ও বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন যৌথভাবে এই আয়োজন করেছে। জাতি-ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে সবার মাঝে ঈদ আনন্দ ছড়িয়ে দিতেই এই আয়োজন। জাকাত কিংবা দান নয়, নিজেদের সামর্থ্যের টাকায় ছিন্নমূল মানুষজনকে ঈদের পোশাক কেনার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে। এখানে এক টাকায় শিশু-কিশোর, তরুণসহ সবাই নিজদের পছন্দমতো কেনাকাটার সুযোগ পেয়েছে।

এদিকে চট্টগ্রাম মহানগরীর টাইগারপাস বস্তির শিশুরা মাত্র দুই টাকায় ঈদ বাজার করার সুযোগ পাচ্ছে। গতকাল বিকেলে বস্তির পাশে একটি খোলা মাঠে ‘দুই টাকার দোকান’ নামের একটি দোকান চালু করে সামাজিক সংগঠন ‘যাত্রীছাউনি’।

যাত্রীছাউনির দোকানটি খোলা ছিল মাত্র দুই ঘণ্টা। এই দুই ঘণ্টায় বস্তির প্রায় ৫০ জন শিশু এই দোকান থেকে দুই টাকায় নিজদের পছন্দের পোশাক কিনেছে। দোকানটি উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) উপকমিশনার (দক্ষিণ) বিজয় বসাক। তিনি বলেন, বস্তির শিশুদের দুই টাকায় ঈদের পোশাক কেনার সুযোগ করে দেওয়ার আনন্দই অন্যরকম। শিশুরা এসেছে, তাদের পছন্দের পোশাক কিনেছে। তারা যাতে সামর্থ্যের মধ্যে কেনাকাটা করতে পারে, সেই সুযোগই করে দেওয়া হয়েছে।

দুই টাকার দোকানে কেনাকাটা করতে এসে সাজিদ সুমন আপ্লুত হয়ে পড়ে। সাজিদ বলে, ‘আমার জমানো টাকায় আমি পাঞ্জাবি কিনেছি। এই পাঞ্জাবি পরে ঈদের দিন নামাজে যাব।’ আবার এক কিশোরীকে দেখা গেছে অপলক দৃষ্টিতে এক পোশাকের দিকে তাকিতে থাকতে। পরে সেই জামাটিই কিনে নিয়েছে দুই টাকায় সে।