kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১০ আষাঢ় ১৪২৮। ২৪ জুন ২০২১। ১২ জিলকদ ১৪৪২

ইফতার দিতে গিয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৬ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বরগুনার বেতাগীর একটি বাড়িতে ইফতার দিতে গিয়ে এক গৃহবধূকে একা পেয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। দিনাজপুরের হাকিমপুরে শিশু ও চাঁদপুরে তরুণীকে (গৃহকর্মী) ধর্ষণ এবং ফরিদপুরের সালথায় ধর্ষণে তরুণী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ার ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বেতাগী উপজেলার সরিষামুড়ি ইউনিয়নে গত সোমবার সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটে। পরের দিন মঙ্গলবার বেতাগী থানায় নারী ও শিশু আইনে একটি মামলা করেছেন ভুক্তভোগী গৃহবধূ। ধর্ষণে অভিযুক্ত নাঈম একই এলাকার খলিল হাওলাদারের ছেলে। গৃহবধূ ও মামলা সূত্রে জানা যায়, গৃহবধূর স্বামী জেলার বাইরে চাকরি করেন। সোমবার বিকেলে গৃহবধূর শাশুড়ি তাঁর বাবার বাড়িতে এবং শ্বশুর ইফতার করতে মসজিদে যান। বাসায় ছিলেন গৃহবধূ একা। সন্ধ্যায় নাঈম গৃহবধূর দরজার সামনে এসে ডাক দেন। গৃহবধূ দরজা খুলে দিলে নাঈম বলেন, ‘এগুলো আমাদের বাড়ির ইফতারি অনুষ্ঠানের মিষ্টি। ভাবি, মিষ্টিগুলো রাখেন। চাচা-চাচি আসলে তাদের দিবেন।’ গৃহবধূ মিষ্টি নিয়ে ঘরে যান। এ সময় নাঈম ঘরে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দিয়ে তাঁকে নির্যাতন করতে থাকেন। গৃহবধূ ডাক-চিৎকার দিলেও আশপাশের সবাই ইফতারি তৈরিতে ব্যস্ত থাকায় কেউ শুনতে পায়নি। পরে তাঁর শ্বশুর মসজিদ থেকে এসে দরজা বন্ধ দেখে তাঁকে ডাক দিলে নাঈম পেছনের দরজা দিয়ে পালিয়ে যান।

হাকিমপুর উপজেলার হিলি বিজিবি ক্যাম্পের সামনে থেকে গতকাল বুধবার সকালে অভিযুক্ত রবিউল ইসলামকে (২৫) গ্রেপ্তার করেন তদন্ত কর্মকর্তা এসআই বেলাল হোসেন। রবিউল উপজেলার দক্ষিণ বাসুদেবপুর গ্রামের আনসার আলীর ছেলে। গত ২০ এপ্রিলের ঘটনায় পরের দিন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছিলেন ভুক্তভোগী শিশুটির (১০) বাবা।

সালথায় ধর্ষণে তরুণী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়া এবং তা দুই লাখ টাকায় মীমাংসার ঘটনায় গত সোমবার রাতে থানায় ১০ জনের নামে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন ভুক্তভোগী। পরে রাতেই ঘটনাটি মীমাংসা করে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টাকারীদের অন্যতম আসামি মনোয়ার হোসেন নান্নুকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। মামলায় প্রধান আসামি ধর্ষণে অভিযুক্ত ফেলা মাতুব্বরের বাড়ি উপজেলার নারানদিয়া গ্রামে। 

চাঁদপুরে মা-বাবার অনুপস্থিতিতে বাসায় একা পেয়ে গৃহকর্মীকে একাধিকবার ধর্ষণে অভিযুক্ত আমজাদ মাহমুদ নিলয়কে (২১) গত মঙ্গলবার রাতে ভোলা থেকে গ্রেপ্তার করে চাঁদপুর সদর মডেল থানা পুলিশ। গতকাল দুপুরে তাঁকে চাঁদপুরের বিচারিক হাকিমের আদালতে নেওয়া হলে তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। পরে তাঁকে জেলহাজতে পাঠানো হয়। নিলয় রাজধানী ঢাকার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েন।

[প্রতিবেদনে তথ্য দিয়েছেন নিজস্ব প্রতিবেদক, ফরিদপুর এবং চাঁদপুর, বেতাগী (বরগুনা) ও হিলি প্রতিনিধি]



সাতদিনের সেরা