kalerkantho

শুক্রবার । ৪ আষাঢ় ১৪২৮। ১৮ জুন ২০২১। ৬ জিলকদ ১৪৪২

বস্ত্র ও পোশাক শিল্পের যন্ত্রাংশে শুল্ক ছাড় চান উদ্যোক্তারা

অর্থমন্ত্রীর কাছে তিন সংগঠনের চিঠি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বস্ত্র ও পোশাক শিল্প-কারখানায় ব্যবহৃত যন্ত্রাংশ আমদানিতে শুল্ক ছাড় চান উদ্যোক্তারা। মূলধনী যন্ত্রের মতো খুচরা যন্ত্রাংশ আমদানিতেও শুল্ক কমিয়ে ১ শতাংশে নামিয়ে আনতে বাজেটে দিকনির্দেশনা চান তাঁরা। গতকাল রবিবার অর্থমন্ত্রী  আ হ ম মুস্তফা কামালের কাছে লেখা এক চিঠিতে এ অনুরোধ জানিয়েছে বস্ত্র ও পোশাক খাতের তিন সংগঠন বিজিএমইএ, বিকেএমইএ ও বিটিএমএ। যন্ত্রাংশ আমদানিতে বর্তমানে ২৬ শতাংশ থেকে সর্বোচ্চ ১০৪ শতাংশ শুল্ক রয়েছে।

চিঠিতে সব ধরনের কৃত্রিম তন্তু আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহারেরও অনুরোধ জানানো হয়েছে। কৃত্রিম তন্তু আমদানিতে ১৫ শতাংশের মতো শুল্ক রয়েছে। বর্তমানে শুধু কটন ফাইবার আমদানিতে শুল্ক ছাড় সুবিধা রয়েছে। বৈশ্বিক চাহিদা বিবেচনায় কৃত্রিম তন্তুর উচ্চমূল্যের পোশাকে ঝুঁকছেন উদ্যোক্তারা।

অর্থমন্ত্রীর কাছে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়, প্রাথমিক বস্ত্র খাতে স্পিনিং, উইভিং, ডায়িং, প্রিন্টিং, ফিনিশিং মিল এবং পোশাক খাতে অত্যাধুনিক কমপিউটারাইজড মেশিনারিজ ব্যবহার হচ্ছে। মূলত যেসব বিদেশি প্রতিষ্ঠান থেকে মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানি করা হয়, যন্ত্রাংশও সেসব কম্পানি থেকেই আমদানি করা হয়। বর্তমানে যন্ত্রাংশভেদে সর্বনিম্ন ২৬.২ শতাংশ থেকে সর্বোচ্চ ১০৪.৬৮ শতাংশ শুল্ক রয়েছে। এত বেশি হারে শুল্ক কর দিয়ে শিল্পপ্রতিষ্ঠান প্রতিযোগিতামূলকভাবে পরিচালনা করা সম্ভব নয়। বিষয়টি বিবেচনার দাবি রাখে।

অন্যদিকে কৃত্রিম তন্তুর ব্যবহার প্রসঙ্গে চিঠিতে বলা হয়, দেশের বস্ত্র খাতের স্পিনিং মিলগুলো কাঁচামাল হিসেবে তুলার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের কৃত্রিম তন্তু ব্যবহার করে থাকে। আগামী দিনে এ প্রবণতা আরো বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে।



সাতদিনের সেরা