kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

রাজশাহীতে কলেজ শিক্ষার্থীকে ‘ধর্ষণ’

জামালগঞ্জের ঘটনায় প্রধান আসামি মোহনগঞ্জে গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী ও সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি   

১ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজশাহীর বাঘা উপজেলায় কলেজছাত্রীকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে এক যুবকের বিরুদ্ধে। সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জে দুই পোশাককর্মীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় করা মামলায় প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৯ সুনামগঞ্জের অভিযানিক দল।

বাঘায় অভিযুক্ত শহিদুল ইসলামকে (৩১) আসামি করে গত বৃহস্পতিবার রাতে থানায় মামলা করেছে ভুক্তভোগীর পরিবার। শহিদুল উপজেলার ঝিনা দক্ষিণপাড়া এলাকার আব্দুস সালামের ছেলে। এজাহার থেকে জানা গেছে, দীর্ঘদিন আগে ওই কলেজছাত্রীর সঙ্গে শহিদুল প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। পরে তিনি তাঁকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। এরপর কলেজছাত্রী বিয়ে করার কথা বললে শহিদুল তাতে অস্বীকৃতি জানান। গত বুধবার কলেজছাত্রী বিয়ের দাবিতে শহিদুলের বাড়িতে যান। তবে বাড়ির লোকেরা তাঁকে মারধর করে তাড়িয়ে দেন।

জামালগঞ্জের ঘটনায় আলমগীর মিয়াকে (২৫) গতকাল শুক্রবার বিকেলে নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁর বাড়ি জামালগঞ্জের চানপুর গ্রামে। তিনি মোহনগঞ্জের বামেরচর গ্রামে তাঁর বোনজামাই আব্দুর রহমানের বাড়িতে আত্মগোপনে ছিলেন। সুনামগঞ্জ র‌্যাব-৯-এর উপপরিচালক সিঞ্চন আহমদ বলেন, গ্রেপ্তার আসামিকে জামালগঞ্জ থানায় হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।

গত সোমবার রাতে জামালগঞ্জে নিজ বাড়িতে ফেরার পথে ধর্ষণের শিকার হয় দুই পোশাককর্মী কিশোরী। এই ঘটনায় পরদিন এক কিশোরীর বাবা জামালগঞ্জ থানায় দুই যুবকের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন।