kalerkantho

শনিবার । ১০ আশ্বিন ১৪২৮। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৭ সফর ১৪৪৩

আত্মীয় বাড়ি গিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার

পৃথক স্থানে তিন কিশোরীকে নির্যাতন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৩০ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলায় এক নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ওই নারীর এক আত্মীয়সহ আটজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ছাড়া গাজীপুরের কালিয়াকৈরে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ ও সিলেটের বিয়ানীবাজারের স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। নীলফামারীর সৈয়দপুরে মেয়েকে ধর্ষণ ও গর্ভপাত করানোর অভিযোগে এক ব্যক্তি গ্রেপ্তার হয়েছেন।

বোয়ালমারীর চতুল ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুরে গত বুধবার রাতে ঘটনাটি ঘটে। এ ব্যাপারে বোয়ালমারী থানায় গতকাল বৃহস্পতিবার মামলা করেছেন নড়াইলের ভুক্তভোগী গৃহবধূ। ঘটনার রাতেই গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন—গৃহবধূর আত্মীয় ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গার বানা ইউনিয়নের শির গ্রামের কাওসার মোল্যার ছেলে মো. মিন্টু মোল্যা (৩৫), জয়দেবপুর গ্রামের ওলিয়ার ফকিরের ছেলে হাসমত ফকির (৩২) এবং বোয়ালমারীর বনচাকি চরপাড়া গ্রামের গোলাম রসুলের ছেলে জয়নাল আবেদিন (২৯), হেমায়েত হোসেনের ছেলে মফিজুল মোল্যা (২১), আ. কুদ্দুস মোল্যার ছেলে রাজু মোল্যা (২০), রামদেবনগর গ্রামের কামরুল শেখের ছেলে শাহিন শেখ (২১), নূর মোহাম্মদ শেখের সাইফুল ইসলাম (৩৫) ও চরসুখদেবনগর গ্রামের আবু মোল্যার ছেলে রিপুল মোল্যা (৩৯)।

থানা সূত্রে জানা যায়, ওই গৃহবধূ বুধবার তাঁর খালাতো বোনের স্বামী মিন্টু মোল্যার বাড়িতে বেড়াতে আসেন। এসে শোনেন, খালাতো বোনের জা বোয়ালমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন। সেখানে অবস্থান করছেন খালাতো বোন। পরে গৃহবধূ ওই হাসপাতালে যান। সেখান থেকে রাতে তিনি মিন্টুর সঙ্গে তাঁর (মিন্টু) বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেন। পথে তাঁকে রামচন্দ্রপুরের একটি মেহগনি বাগানে নিয়ে মিন্টুসহ তিনজন ধর্ষণ করেন। বিষয়টি টের পেয়ে এলাকার আরো পাঁচজন গিয়ে মিন্টুকে মারধর করে গৃহবধূকে ধর্ষণ করে। নিজেকে বাঁচাতে মিন্টু গৃহবধূকে ম্যানেজ করে বিষয়টি (মিন্টুর নাম বাদ দিয়ে) আলফাডাঙ্গা থানায় গিয়ে জানান। ঘটনাস্থল বোয়ালমারী থানার মধ্যে হওয়ায় সেখানকার পুলিশ বোয়ালমারী থানাকে জানায়।

সিলেটের বিয়ানীবাজারের স্কুলছাত্রীটিকে (১৬) বুধবার ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার একটি বস্তি থেকে উদ্ধার করে বিয়ানীবাজার থানার পুলিশ। বিয়ানীবাজারের জলঢুপ পাড়িবহর এলাকার সিরাজ উদ্দিনের ছেলে অভিযুক্ত জায়েদ আহমদকে (২০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, দেড় বছর ধরে ছাত্রীটির সঙ্গে জায়েদের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি জানতে পেরে তাদের পরিবার সালিসের মাধ্যমে দুজনকে এ থেকে বিরত থাকতে বলে। তবে হঠাৎ একদিন জায়েদ ছাত্রীটিকে তার বাড়ির সামনে আসতে বলে। সে এলে তাকে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় অপহরণ করে পীরগঞ্জের একটি বস্তিতে নিয়ে ধর্ষণ করে জায়েদ।

কালিয়াকৈরে বুধবার রাতের ঘটনায় সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীটির বাবা গতকাল তিনজনের নামে কালিয়াকৈর থানায় মামলা করেছেন। প্রধান আসামি আরিফুল ইসলাম (১৮) গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মাদারদহ এলাকার বাদল মোল্লার ছেলে। তিনি কালিয়াকৈরের পল্লীবিদ্যুৎ সরকারবাড়ী এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন।

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা যায়, বুধবার বিকেলে ছাত্রীটি তাদের বাসা থেকে পার্শ্ববর্তী দোকানে কেনাকাটা করতে যায়। এ সময় আরিফুল ও তাঁর সহযোগী তামীম, বাদল ছাত্রীটিকে জোর করে মুখে কাপড় চেপে ধরে ভাড়া বাসায় নিয়ে আটকে রাখেন। পরে আরিফুল তাকে ধর্ষণ করেন। রাত সাড়ে ১০টার দিকে আরিফুল ছাত্রীটিকে অজ্ঞান অবস্থায় সরকারবাড়ী বাজারের পাশে ফেলে রেখে পালিয়ে যান। আরিফুল ও তাঁর বাবা পলাতক।

[প্রতিবেদনে তথ্য দিয়েছেন কালের কণ্ঠ’র বোয়ালমারী-আলফাডাঙ্গা (ফরিদপুর), বিয়ানীবাজার (সিলেট), সৈয়দপুর (নীলফামারী) ও কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি]



সাতদিনের সেরা