kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

চেন্নাইতে আটকা বাংলাদেশিরা ফ্লাইট চালুর অপেক্ষায়

ব্যয়বহুল চিকিৎসার খরচ মিটিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য ভিনদেশে আটকে পড়ায় তাদের চোখে-মুখে চিন্তার মেঘ

নিজস্ব প্রতিবেদক, চেন্নাই থেকে   

২৩ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চিকিৎসা নিতে ভারতের চেন্নাইতে এসে আটকে পড়া লাখো বাংলাদেশি দেশে ফিরতে প্রতীক্ষার প্রহর গুনছে। বাংলাদেশে লকডাউনের কারণে ভারতের সঙ্গে আকাশপথ বন্ধ থাকায় বিপদে পড়েছে চেন্নাইতে আসা বাংলাদেশের অনেক রোগী ও তাদের স্বজনরা। এ রকম প্রেক্ষাপটে মানবিক দিক বিবেচনায় নিয়ে চেন্নাই থেকে বিশেষ বিমান চালুর আবেদন জানিয়েছে আটকে পড়া বাংলাদেশিরা।

চেন্নাইয়ের অ্যাপোলো হাসপাতাল, ভেলোরের ক্রিস্টিয়ান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, শঙ্কর নেত্রালয়, ঈশ্বরিয়া উইমেন্স ক্লিনিক অ্যান্ড ফার্টিলিটি সেন্টারসহ অনেক হাসপাতালেই চিকিৎসা নিতে আসে বাংলাদেশসহ পাশের অনেক দেশের মানুষ। ক্যান্সার, কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট, ইনফার্টিলিটিসহ নানা রোগের চিকিৎসা করাতে এই হাসপাতালগুলোতে ভিড় জমায় বাংলাদেশের রোগীরা।

ভারতে করোনা পরিস্থিতির অবনতির কারণে বাংলাদেশের সঙ্গে বিমান যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যাওয়া এবং ভারতে লকডাউনের আশঙ্কায় আটকে পড়া বাংলাদেশের রোগীদের মনে দানা বাঁধছে অনিশ্চয়তা। কবে নাগাদ দেশে ফিরতে পারবে, সেই সঙ্গে ব্যয়বহুল চিকিৎসার খরচ মিটিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য ভিনদেশে আটকে পড়ায় তাদের চোখে-মুখে চিন্তার মেঘ।

দীর্ঘদিনের দাম্পত্যজীবনে সন্তানের মুখ না দেখা অনেকেই চিকিৎসা নিতে ভারতের চেন্নাইয়ের ঈশ্বরিয়া, ইন্ডিগো, অ্যাপোলোসহ অনেক হাসপাতালেই আসে আইভিএফ ট্রিটমেন্টের জন্য। অনেক দম্পতিই চিকিৎসার পর সন্তান ধারণের সুসংবাদ পেয়েছেন। কিন্তু সেই আনন্দ কেড়ে নিয়েছে করোনা। অন্তঃসত্ত্বা নারীদের মাতৃত্ব নিশ্চিতের ১৬ সপ্তাহ পর বিমানভ্রমণ ঝুঁকিপূর্ণ। এমন অনেক দম্পতিই আছেন শঙ্কায়। কারণ নির্দিষ্ট সময় পেরিয়ে গেলে তাঁরা আর সন্তান নিয়ে দেশে ফিরতে পারবেন না। কিংবা ঝুঁকিপূর্ণ বিমান যাত্রায় হয়ে যেতে পারে গর্ভপাত।

চল্লিশোর্ধ্ব এক দম্পতি চেন্নাইতে এসে চিকিৎসা করিয়ে মা-বাবা হতে যাচ্ছেন—এমন সুসংবাদ পেলেও তাঁদের আনন্দে বাদ সেধেছে বিমান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা। সরাসরি দেশে ফিরতে না পেরে তাঁরা চেন্নাই থেকে কলকাতা হয়ে বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশে ঢোকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তবে বিমান যাত্রার পর সড়কপথে দীর্ঘ যাত্রা শেষে মা ও অনাগত সন্তানের সুস্থতা নিয়ে সন্দিহান তাঁরা।

বাংলাদেশ থেকে ভারতে আসা অনেকেরই আবার ভিসার মেয়াদ ফুরিয়ে গেছে। পাসপোর্টে স্থলবন্দর হিসেবে আগরতলা যুক্ত না থাকায় অনেকে সহজে দেশেও ফিরতে পারছে না।



সাতদিনের সেরা