kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

সিপিডি-বিলসের ওয়েবিনারে বক্তারা

প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেননি মালিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৮ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লকডাউনে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় শ্রমিকদের আনা-নেওয়ার ব্যবস্থা করার প্রতিশ্রুতি থাকলেও কারখানার মালিকরা তা রক্ষা করেননি। ‘করোনাকালে শ্রমবাজার পুনরুদ্ধারে ট্রেড ইউনিয়নের ভূমিকা’ শীর্ষক ওয়েবিনারে বক্তারা গতকাল শনিবার এই মন্তব্য করেন। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা সৈয়দ মঞ্জুর এলাহীর সভাপতিত্বে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) ও বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজের (বিলস) এই সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়।

বক্তাদের অভিযোগ, গণপরিবহনের অভাবে হেঁটে কারখানায় যেতে হচ্ছে শ্রমিকদের। সরকার মালিকদের পক্ষ নিয়েছে। একজন শ্রমিক যদি পাঁচ মাইল হেঁটে কারখানায় যান, তাহলে এমনিতেই তাঁর উৎপাদন সক্ষমতা হারায়। শ্রমিকদের সঙ্গে মালিকদের যোগাযোগের বড় ধরনের ঘাটতি রয়েছে।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সিপিডির গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম। এতে তিনি বলেন, সামাজিক সুরক্ষা নীতির ওপর ভিত্তি করে শ্রমিক সংঘগুলোকে সামাজিকভাবে বঞ্চিত মানুষের খাদ্য কর্মসূচির পাশাপাশি পরিবারে প্রয়োজনীয় সহায়তাগুলো চিহ্নিত করতে হবে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য শিরীন আখতার, শ্রমসচিব কে এম সোবহান, সিপিডির ট্রাস্টি রেহমান সোবহান, আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) কান্ট্রি ডিরেক্টর টুমো পটিআইনান, মানবাধিকারকর্মী হামিদা হোসেন প্রমুখ।

রেহমান সোবহান বলেন, ‘শ্রমিকদের পরিবহনের ব্যবস্থাসহ কারখানায় সামাজিক সুরক্ষার যে অঙ্গীকার মালিকরা সরকারের সঙ্গে করেছেন, তা নিশ্চিত করতে হবে।’ শ্রমিক নেতা মন্টু ঘোষ বলেন, ‘কারখানার মালিকরা যেন যাতায়াতের ব্যবস্থা করেন সরকারের সেই উদ্যোগ নেওয়া উচিত।’ শ্রমসচিব কে এম সোবহান বলেন, ‘করোনার প্রথম ধাপে সরকারের ২৩টি প্রণোদনার প্রথমটি ছিল শ্রমিকদের জন্য। মালিক-শ্রমিকদের সংকট থাকে।’



সাতদিনের সেরা