kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৮ মে ২০২১। ৫ শাওয়াল ১৪৪

ছিনতাইকারীদের হাতে পুলিশ নাকাল

চট্টগ্রাম

এস এম রানা, চট্টগ্রাম   

১৩ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চট্টগ্রাম মহানগরীতে ছিনতাইকারীদের দৌরাত্ম্যে পুলিশ সদস্যরা নাকাল। গত ২৫ মার্চ আকবরশাহ থানা এলাকায় পুলিশ সদস্যরা ছিনতাইকারী গ্রেপ্তার করতে গেলে ছিনতাইকারীরা তাদের গলা কেটে হত্যার চেষ্টা চালায়। অন্যদিকে গত ৬ এপ্রিল এক রিকশারোহী নারী ছিনতাইকারীর কবলে পড়লে তাঁকে রক্ষায় এগিয়ে গেলে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতের শিকার হন জেলা পুলিশের সহকারী উপপরিদর্শক কামাল হোসেন।

এই দুই ঘটনায় অবশ্য পুলিশ পরে ওই ছিনতাইকারীদের গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়। তবে পুলিশের মতো ছিনতাইকারীদের প্রতিরোধ করতে পারছেন না সাধারণ মানুষ। ফলে ক্রমাগত ছিনতাইয়ের শিকার হচ্ছেন তাঁরা। ঝামেলা এড়াতে এসব ঘটনায় ভুক্তভোগীরা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে থানায় মামলা করেন না। এই সুযোগে ছিনতাইকারীরা আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, রমজান মাসে ছিনতাইয়ের ঘটনা কিছুটা বাড়ে। টানা পার্টি, মলম পার্টি, গামছা পার্টির তৎপরতা বাড়ে। এসব ঘটনা প্রতিরোধে পুলিশ সক্রিয় আছে। আর ছিনতাইকারী ধরতে গিয়ে পুলিশ সদস্য আহত হওয়া মানে, ঝুঁকি নিয়েও কাজ করছে পুলিশ। কর্মকর্তারা আরো বলছেন, এবার রমজান শুরু হচ্ছে গত বছরের মতো করোনা পরিস্থিতির মধ্যে। আরেক দফা লকডাউন শুরু হচ্ছে। তার পরও কিছু মানুষের আগাগোনা থাকে। এই সুযোগে সক্রিয় হয় ছিনতাইকারীরা।

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের আকবরশাহ থানার ওসি জহির হোসেন বলেন, ২৫ মার্চ ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতের শিকার হয়েছেন তিন পুলিশ সদস্য। তাঁরা অভিযানে বের হয়ে থানা এলাকার কালীবাড়ী যান ছিনতাইকারী ইমাম হোসেন ও আরাফাত হোসেনসহ তাদের সহযোগীদের ধরতে। এক পর্যায়ে ছিনতাইকারীরা পুলিশ সদস্যদের ওপর চড়াও হয়ে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে হত্যার চেষ্টা চালায়। তখন আত্মরক্ষার্থে পুলিশ গুলি চালায়। ঘটনাস্থল থেকে আহত তিন উপপরিদর্শক সুবল কুমার দাশ, ইসমাইল হোসেন ও নিখিল চন্দ্র দাশকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। একই সঙ্গে গুলিবিদ্ধ দুই ছিনতাইকারীকেও ভর্তি করা হয়।

একইভাবে ডবলমুরিং থানা এলাকায় সহকারী উপপরিদর্শক কামাল হোসেন ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে আহত হন। পুলিশের দেওয়া তথ্যানুযায়ী, ওই দিন কামাল হোসেনের স্ত্রী রিকশাযোগে বাসায় ফিরছিলেন। আর তিনি ছিলেন রিকশার পেছনে মোটরসাইকেলে। স্ত্রীকে বহনকারী রিকশাটি আগ্রাবাদ মোড়ে পৌঁছলে ছিনতাইকারীরা তাঁর গলার চেইন টান দিয়ে ছিনিয়ে নেয়। বিষয়টি লক্ষ করে কামাল ছিনতাইকারীদের ধাওয়া দেয়। তখন ছিনতাইকারীরা কামালের হাতে ছুরিকাঘাত করে পালানোর চেষ্টা করে। কিন্তু আশপাশের লোকজনের সহযোগিতায় ওই ছিনতাইকারীকে আটক করা হয়।

চলতি বছরের প্রতি তিন মাসে মহানগরীতে ছিনতাইয়ের ঘটনায় মামলা হয়েছে ৫৩টি। এসব মামলায় গ্রেপ্তার হয়েছে ৬৮ জন।